মামীর যৌন আবেদন

আর আমার লম্পট মামাও যে তার বিভিন্ন উদ্দেশ্যে সাধাসিধে সরলামতি মামীকে ব্যবহার করে সেটাও আমার কাছে সেদিন পরিস্কার হয়ে গিয়েছিল। ঐ বন্ধুদের মধ্যে একজন ছিল মামার ব্যবসায়িক পার্টনার। আগে বুঝতাম না, সেদিন থেকে ভালোই বোঝা আরম্ভ করলাম মামা ইচ্ছা করেই তার সাগ্রেদ্দের সামনে আমার মামীটাকে ঢলাঢলি করতে প্রশ্রয় দিচ্ছে, ছেনালীপনায় উৎসাহিত করছে।

আর ঐদিন মামীও এমনভাবে খাবার সার্ভ করার ছলে পরপুরুষগুলোর গা ঘেঁসে ঠাট্টামস্করা করছিল যেন ওরা মামার বন্ধু না, বরং মামীরই বয়ফ্রেন্ড। মামার অবাধ প্রশ্রয়ে পরপুরুসদের সঙ্গে আমার ছিনাল মামীর খোলাখুলি ফষ্টিনষ্টি ন্যাকাচোদামো দেখে এক পর্যায়ে আমার তো মনেই হচ্ছিল হাফ-মাতাল বাইরের লোকগুলো যদি এখন নায়লা মামীকে বিছানায় নিয়ে গিয়ে মস্তি করতে চায় আমার মদ্যপ মামা বিনা দ্বিধায় তার বৌকে তাদের হাতে তুলে দেবে!
যাকগে, ভূমিকা অনেক হলো। এবার আসল কাহিনীতে আসি।

আগেই উল্লেখ করেছি আমার মামার উড়নচণ্ডী স্বভাবের কথা। আদর্শ দম্পতি না হলেও মামা-মামীর সংসারে দাম্পত্য সুখ-শান্তির অভাব ছিল না। তবে সেই শান্তিতে ব্যাঘাত ঘটল মামার বোকামির কারণে।

কয়েক মাস আগে শেয়ার মারকেটের পারদ চড়েছিল পাগলের মতো। সবাই পঙ্গপালের মতো মারকেটে তাকা ঢালছিল। ভাগ্যবান অনেকেই ছপ্পড় ফাঁড়কে লাভ করেছিল। আমার মামাও লোভে পড়ে এর ওর কাছ থেকে প্রচুর অর্থ ধারদেনা করে স্টক মারকেটে ঢালল। অথচ মামা বিনিয়োগের কিছুই বোঝে না। যাকে তাকে দেখে উল্টোপাল্টা শেয়ার কিনল। প্রথম দিকে লাভের মুখ দেখলেও শেষ রক্ষা হল না। ফলাফল অবধারিত – মাস দেড়েকের মধ্যেই মারকেট ক্র্যাশ। রাতারাতি মামার লগ্নীর দুই-তৃতীয়াংশ উধাও!

মামা তখন দিশেহারা। যে অরহ শেয়ারে ঢেলেছিল তার অর্ধেকের বেশি আত্মিয়স্বজন আর বন্ধুবান্ধবদের কাছ থেকে ধার করা। নিজের অর্থ গচ্চা ত্ত গেছেই, অন্যের ধার শোধ করার চিনাত্য মামা মামী চোখেমুখে অন্ধকার দেখছে। ধার শোধ করার জন্য গ্রামের কিছু জমি বিক্রি করে দিলো, তার পরেও প্রচুর দেনা রয়ে গেল।
এই অবস্থায় পরিত্রাতার ভূমিকায় আবির্ভুত হলো মামার পুরানো বন্ধু রমেশ। তাকে আমি রমেশ কাকা বলে ডাকি।
রমেশ কাকা বেশ সফল ব্যবসায়ী। মামার সমবয়সী হলেও সে কয়েকটা ইন্ডাস্ট্রীর মালিক বনে গেছে। রমেশ কাকা নিজেও শেয়ারের জন্য মামাকে কিছু অর্থ ধার দিয়েছিল।

নিজের ভাগের পাওনাটা মাফ তো করে দিলই, সেই সাথে মামার অন্যান্য দেনার উল্লেখযোগ্য অংশও রমেশ কাকা মিটিয়ে দিলো। অবশ্য রমেশ কাকার ব্যাঙ্ক ব্যালেন্স শত শত কোটি টাকার – বিশ-পঁচিশ লক্ষ্য টাকা ছড়ানো তার পক্ষে কোন ব্যাপারই না। রমেশ কাকার এই অভূতপূর্ব দাক্ষিণ্যে মামা মামী ভীষণ ভাবে কৃতজ্ঞ হয়ে পড়ল তার প্রতি।

মামার ধার আরও কিছু বাকি ছিল। সেটাও খুব সহজে পরিশোধ করার বুদ্ধি বাতলে দিলো রমেশ কাকা। মামার এ্যাপার্টমেন্টটা ভাড়ায় দিয়ে দিতে পরামর্শ দিলো লোকটা। রমেশ কাকার বিরাট দ্বিতল বাড়ি আছে – নীচের তলাটা সবসময় খালিই পড়ে থাকে। ফ্ল্যাট ছেড়ে দিয়ে আমাদেরকে তাদের বাড়িতে শিফট করতে উপদেশ দিলো। বুদ্ধিটা মামার বেশ মনে ধরল – ফ্লাটের মাসিক ভাড়া আর ব্যবসার আয় থেকে কয়েক মাসের মধ্যেই সমস্ত ধারদেনা মিটিয়ে ফেলতে পারবে। নিজেদের ফ্ল্যাট ছেড়ে অন্যের বাড়িতে উঠতে মামীর খুব একটা ইচ্ছা ছিল না, তবে মামার পীড়াপিড়ী এবং কয়েক মাসের মধ্যে দেনা চুকে গেলে আবার ফেরত আস্তে পারবে এই আশ্বস্তি পাওয়ায় মামী নিমরাজি হল।

তবে, অর্থকড়ির বাইরেও অন্য আরেকটি বিষয়ে রমেশ কাকা আর মামার মধ্যে যে গোপন বোঝাপড়া হয়েছিল তা কিছুদিন পরেই আমি সম্যক টের পেলাম।
পরের মাসেই রমেশ কাকার বাড়িতে উঠে গেলাম আমরা।
রমেশ কাকা বিপত্নীক – বছর খানেক হলো তার স্ত্রী মৃত্যুবরণ করেছে। দ্বিতল বিশাল বাড়িতে রমেশ কাকা, তার পুত্র রঞ্জু আর ৩/৪ জন খান্সামা থাকে। রমেশ কাকা আর রঞ্জুদা থাকে দ্বিতীয় তলায়। আমাদের জন্য এক্তলার পুরটাই ছেড়ে দেওয়া হল – এই ফ্লোরটা অবশ্য এমনিতেই খালি থাকত।
মামার বন্ধুএ বাড়িতে উঠে থিতু হতে হতে ব্যস্ততার মধ্যে দিয়ে ঝড়ের বেগে ৩/৪ দিন চলে গেল।

একতলায় বাড়ির ডাইনিং, কিচেন অবস্থিত। নিজের সংসার গুছিয়ে নেওয়া শেষ হলে নায়লা মামী স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে রমেশ কাকার হেঁশেলের দায়িত্ব নিয়ে নিল। রমেশ কাকার আপত্তিতে কান না দিয়ে মামীম কিচেনের সমস্ত দায়িত্ব ঘাড়ে তুলে নিল – তাছাড়া এতো বড় বাড়িতে শুইয়ে বসে বোরড না হয়ে কিছু একটা নিয়ে মামীও ব্যস্ত থাকা দরকার ছিল।
নন্দুদা নামে একজন পাচক আগে থেকেই ছল। পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব লোকটার আসল নাম নন্দুলাল – তবে সকলে তাকে নন্দু নামেই ডাকে। রান্না খারাপ করত না লোকটা। তবে আমার পাকা রাঁধুনি মামীর রমণীয় ছোঁয়ায় এ বাড়ির রান্নাবান্নায় রাতারাতি বিরাট উন্নতি হল।

প্রথম দিন ডিনারে মামীর নিজ হাতের রান্না হরেক আইটেমের রান্না খেয়ে তৃপ্তির ঢেকুর তুলে রমেশ কাকা মামাকে উদ্দেশ্য করে বলল, ”বাহ! তোফা রান্না! ভালই হল দোস্ত তোদেরকে এখানে এনে। এবার রোজ বৌদির হাতের মজার খাবার খেতে পারব”। বলে হাঁসতে লাগলো কাকা, তারপর যোগ করল, “নায়লা বৌদি আসার পর থেকেই আমাদের এই পুরুষপ্রধান, নীরস, বোরিং বাড়িটিতে হথাত একটা চমৎকার মেয়েলী ছোঁয়া এসে গেছে! নাহ! আমি সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছি নায়লা বৌদি। আজ থেকে তুমি এই বাড়ির গৃহকত্রি হলে। এ বাড়ি আজ থেকে তোমার আঁচলের তোলে তুলে দিলাম! নন্দুকে বলেদিচ্ছি, সব চাবীটাবী বুঝিয়ে দিয়ে যাবে। নায়লা বৌদি, তুমিই পারবে বাড়ির এই গুমোট আবহাওয়া সরিয়ে প্রাণে রসের চাঞ্চল্য ফিরিয়ে আনতে!”

মামী তো আশ্রয়দাতার ভূয়সী প্রশংসা শুনে লজ্জায় লাল। মৃদু কণ্ঠে অফারটা প্রত্যাখ্যান করার ব্যর্থ চেষ্টা করল ও, রমেশ কাকা ওর কোনও আপত্তিই কানে তুলল না।
মামাও ফুসলাতে লাগল, “আরে নায়লা, সংকোচের কিছু নাই। রমেশ আমার সেই ল্যাংটোকালের বন্ধু। ওর সাথে কোনও আনুষ্ঠানিকতা নাই। রমেশ যখন চাইছে তোমাকে বাড়ির গৃহিণী বানাতে, তুমি নিশ্চিন্তে রাজি হয়ে যাও!”

রমেশ কাকা (এবং মামাও) অবশ্য নায়লা মামীকে শুধু বাড়ির গৃহিণী না, আরো অনেক কিছু বানানোর দুরভিসন্ধী করে রেখেছে। তবে আমার সাধাসিধে মামী এতো কিছু জানে না, অল্পতেই ওর স্বামী আর স্বামীর বন্ধুর পীড়াপীড়িতে রাজি হয়ে গেল।

3 3 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x