কলঙ্কিনী কঙ্কাবতী [পার্ট ২]

কলঙ্কিনী কঙ্কাবতী (#13)

সকাল বেলা প্রাক্টিকাল ক্লাস শুরু হল। এমন সময়ে দরজার কাছ থেকে রিতিকার মুখ উঁকি মারতে দেখে দেবেশ থ। ক্লাসের সব ছেলের চোখ চলে গেল দরজার দিকে। উফ আহ সবার মুখ থেকে আওয়াজ বের হচ্ছে, কেউ টিটকিরি দিচ্ছে, কি মাল মাইরি, উপাধ্যায় স্যার কি খেয়েছিলেন কে জানে কিন্তু ওর মা নিশ্চয়ই দুধ খেয়ে ছিল তাই মেয়ে এত ফর্সা আর সুন্দরী।

ওই সব কথা শুনে দেবেশের হাসি পেয়ে গেছিল। রিতিকা দরজা দিয়ে ভেতরে তাকিয়ে, শর্মা স্যার বেড়িয়ে গিয়ে জিজ্ঞেস কিছু করল রিতিকাকে। রিতিকার চোখ তখন কাউকে খুঁজে চলেছে। এমন সময়ে দেবেশের চোখের ওপরে রিতিকার চোখ পরে। রিতিকার ঠোঁটে হাসি ফুটে ওঠে ওকে দেখে। শর্মা স্যার কে কানে কানে কিছু বলে রিতিকা চলে গেল।

কলঙ্কিনী কঙ্কাবতী [পার্ট ১]

শর্মা স্যার দেবেশের দিকে হেটে এসে জিজ্ঞেস করলেন, “তোমার প্রাক্টিকাল কত দূর?”

“স্যার এইত সবে শুরু করলাম।” দেবেশ উত্তর দিল।

“আচ্ছা, সে ত দেখছি, তা যাও আজ তোমার ডাক পড়েছে” মিচকি হেসে দেবেশকে বলল শর্মা স্যার।

ক্লাসের বাকি ছেলেদের মাথায় বাজ পড়েছে যেন, হাঁ করে তাকিয়ে দেবেশের দিকে। এর মাঝে ভিশাল এসে কানে কানে জিজ্ঞেস করল, “আবে শালে, কত মাল ফেলেছিশ তুই ওর ওপরে যে ও তোকে বাইরে ডাকছে। সারা আই আই টি যার দিবানা সে কিনা তোর সাথে। তুই শালা ডুবে ডুবে জল খাস ত মাইরি।”

ভিশালের দিকে তাকিয়ে উত্তর দিল দেবেশ, “কামিনা, তোর মতন আমি নই, দেখ রিতিকা আমাকে জুত মারে কিনা।”

ওদিকে স্নেহা আওয়াজ দিল, “জান, যদি রিতিকা ধোঁকা দেয় তাহলে আমার দিল হাজির আছেরে।”

স্নেহার কথা শুনে সবাই হেসে উঠল আর দেবেশের কান লাল হয়ে গেল। সেই ফার্স্ট ইয়ার থেকে স্নেহা ওর পেছন ছারে নি, তবে হ্যাঁ শুধু মাত্র ইয়ার্কি ঠাট্টা করত ওরা, কোনদিন কোন সিরিয়াস হয় নি দেবেশ বা স্নেহা।

ক্লাস থেকে বেড়িয়ে এসে দেখে সামনে দাঁড়িয়ে রিতিকা। আজ যেন আরও সুন্দরী দেখাচ্ছে ওকে। গাড় নীল রঙের জিন্সের ক্যাপ্রি আর ওপরে ছোটো হাতার সাদা টপ। কচি বয়সের ছাপ মুখে তবে সারা অঙ্গে যৌবনের মাদকতার প্রলেপ লাগান। তাই যে কোন ছেলে ওকে দেখলে পিছলে পরে যায়। বুকের কাছে কলেজের ব্যাগ ধরে রেখেছে, যেন ওর বুক নিয়ে দেবেশ খেলবে তাই সেটাকে আড়াল করে রেখেছে।

রিতিকা যেন আদেশ করল দেবেশ কে, “হ্যাঁ কি হল, এবারে তোমার নাম বল।”

হেসে উত্তর দিল দেবেশ, “আমার নাম জানার জন্য একদম ক্লাসে এসে হাজির, তাহলে ত নামটা আরও বলব না।”

চোখে সেই এক রকমের ভ্রুকুটির চাহনি, “না আমি আসতে চাইনি। মাম্মা আমাকে বলল যে যে তোকে গাড়ি করে বাড়ি দিয়ে গেল তার নামটা পর্যন্ত জানলি না, তাই আমি তোমার নাম জানতে এসেছি।”

মাথা নাড়ল দেবেশ, “হুম তার মানে ম্যাডাম আমার নাম শুধু মাত্র মায়ের আদেশ মানার জন্য জানতে এসেছে।”

“হ্যাঁ” রিতিকা এবারে বেশ জোর করে উত্তর দিল, “বলবে না, আমি চলে যাব।”

“তুমি চলে গেলে আমার ত কিছু ক্ষতি হবেনা…” দেবেশ সেই একই সুরে উত্তর দিল। মেয়েটার তাবড় ত বড় বেশি।

রিতিকা দেখল দেবেশ কিছুতেই দমছে না, তাই একটু নম্র হয়ে প্রশ্ন করল, “প্লিস তোমার নামটা বল না, ড্যাড না হলে মন খারাপ করবে।”

হেসে দিল দেবেশ, “আগে ছিল মাম্মা এখন ড্যাড, ব্যাপারটা’কি বলত।”

ইস… ধরা পরে গেছে রিতিকা, মিচকি হেসে বলল, “ছাড় মিস্টার আননেমড, কালকের হেল্পের জন্য থ্যাংকস।”

“ক’বার ধন্যবাদ জানাবে আমাকে, কাল জানিয়েছ আজ আবার।” দেবেশ মুচকি হেসে রিতিকা কে জিজ্ঞেস করল।

“বাপ রে, ধন্যবাদ জানাতে ও তোমার পারমিশান নিতে হবে নাকি।” খিলখিল করে হেসে উঠল রিতিকা। হাসি দেখে দেবেশের হৃদয় ধুক করে উঠল। ডান দিকে একটা গজ দাঁত হাসিটাকে আরও সুন্দর করে তুলেছে।

রিতিকা ডান হাত দেবেশের দিকে বাড়িয়ে দিয়ে বলল, “ওকে বাবা, নো সরি নো থ্যাঙ্ক ইউ। সো ফ্রেন্ডস।”

দেবেশ হাত মেলাল রিতিকার সাথে, “ওকে ডান… ফাস্ট ফ্রেন্ডস… আমি দেবেশ ঘোষাল। ইলেক্ট্রিকাল ফাইনাল ইয়ার।”

“বেশ নাম, আমার মনে থাকবে।” রিতিকা হেসে জবাব দিল। মাথা নাড়াল দেবেশ। রিতিকা হাত নাড়িয়ে বলল, “বাই আমি যাচ্ছি আজ, কলেজের দেরি হয়ে যাবে। কাল দেখা করব আমার কলেজের বাইরে।”

দেবেশ উত্তর দিল, “বাঃ রে, আমার ক্লাস’টা মাটি করে এখন যাওয়া হচ্ছে। বেশ যাও তবে কাল হবে না পরশু হবে।”

প্রশ্ন করল রিতিকা, “কেন কাল কি হয়েছে?”

হেসে জবাব দিল দেবেশ, “আরে না, কাল উপাধ্যায় স্যারের ক্লাস আছে, মিস করা যাবেনা।”

রিতিকা একটু লজ্জায় পরে গেল, “ড্যাড খুব কড়া তাই না?”

মজা করে বলল দেবেশ, “সেটা তার মেয়েকে দেখলেই বোঝা যায়।”

লাজুক হাসি হেসে রিতিকা বলল, “ওকে বাই”

এবারে রিতিকা আর দাঁড়িয়ে না থেকে হাত নাড়িয়ে চলে গেল।

দেবেশের মনের মধ্যে আবার একবার প্রেমের ভাব জেগে উঠল। প্রেম করা’ত ভুলে গেছিল দেবেশ, রিতিকার হাসি আর দুষ্টু মিষ্টি ভাব আবার করে দেবেশের মরু হ্রিদয়ে ফুল ফোটাল। আর ক্লাস করল না দেবেশ। বিছানার ওপরে সারা রাত ধরে শুয়ে শুয়ে হাতে সোনার হার নিয়ে ভাবতে লাগল, রিতিকা কি সেই মেয়ে যার গলায় এই হার পরাবে। এখন ঠিক করে জানে না দেবেশ।

দু’দিন পরে রিতিকার কলেজের সামনে দাঁড়িয়ে দেবেশ সিগারেটে টান দিচ্ছিল। এমন সময়ে পেছন থেকে হাতের ছোঁয়া, “কতক্ষণ ওয়েট করছ?”

ঘাড় ঘুরিয়ে দেখল রিতিকাকে। “বেশি না এই মিনিট দশেক হবে।” জবাব দিল দেবেশ।

“ত এখন কি?” জিজ্ঞেস করল রিতিকা।

দেবেশ মিচকি হেসে বলল, “আমি ডেকেছি নাকি তোমাকে? তুমি’ত আমার সাথে দেখা করার জন্য বললে।”

অভিমান হয়ে গেল রিতিকার, “ও তাই বুঝি, আমি ডেকেছি। ঠিক আছে আমি আর যাবনা।” হাত নাড়িয়ে একটা অটো দাঁড় করাল রিতিকা। “এখন সময় আছে মিস্টার ঘোষাল। নিয়ে না গেলে আমি অটো’তে করে সোজা বাড়ি। তাড়াতাড়ি বল।”

কলঙ্কিনী কঙ্কাবতী (#14)

রিতিকাকে অটোর মধ্যে ঠেলে দিয়ে নিজে উঠে গেল দেবেশ। অটো ওয়ালা কে বলল, “সাউথ এক্স চলো।”

মিচকি হেসে জিজ্ঞেস করল রিতিকা, “এতক্ষণ বুঝি খেলা চলছিল আমার সাথে।”

“না রে আমি কারুর সাথে খেলি না যা করি সোজা সুজি করি।” দেবেশ রিতিকার প্রশ্নের জবাবে বলল।

সি সি ডি তে পাশাপাশি বসে কফি খেতে খেতে রিতিকা জিজ্ঞেস করল, “ত এর পরে কি?”

উত্তর দিল দেবেশ, “এর পরে চাকরি। নেক্সট সেমেস্টারে ক্যাম্পাস হবে, সেখান থেকে কিছু একটা পেয়ে যাব। যদি পারি ত ফিরে যাব কলকাতা।”

অবাক হয়ে প্রশ্ন করল রিতিকা, “দিল্লী এলে আই আই টি পড়লে, এর পরেও ফিরে যাবে কলকাতায়?”

“কেন বলত?” প্রশ্ন করল দেবেশ।

“না মানে এমনি জিজ্ঞেস করছিলাম” রিতিকা একমনে কফিতে চুমুক দিতে দিতে উত্তর দিল, “এই ধর কাউকে দিল্লী’তে পেয়ে গেলে মানে কোন গার্ল ফ্রেন্ড তাও তাকে ছেড়ে দিয়ে কলকাতা চলে যাবে তুমি?”

দেবেশ বেশ বুঝতে পারল যে রিতিকা একটু ঝুঁকেছে ওর দিকে, আর দেবেশ’ত আগে থেকে হাত বাড়িয়ে তৈরি, পড়লেই লুফে নেবে যেন। চোখে চোখ রেখে উত্তর দিল দেবেশ, “মনের মতন সাথি পেলে আমি তার সাথে যেখানে খুশি যেতে পারি।”

উত্তর’টা শুনে রিতিকার মন খুশিতে ভরে উঠল, “সত্যি?”

মাথা নাড়াল দেবেশ, “হ্যাঁ সত্যি।”

শুরু হয়ে গেল, দেবেশ আর রিতিকার প্রেম। সারা কলেজ ক্যাম্পাস জেনে গেল যে, উপাধ্যায় স্যারের মেয়ে রিতিকা দেবেশের প্রেমে পড়েছে। শুধু জানেনা উপাধ্যায় স্যার আর তার স্ত্রী। সন্ধ্যে বেলায় পার্টি, কখন সাউথ এক্সের বারে বসে একসাথে ড্রিঙ্কস করা বা কোন ডিস্কওথেকে গিয়ে জড়াজড়ি করে নাচা। সব শুরু হয়ে গেল রিতিকা আর দেবেশের মধ্যে।

একদিন বিকেল বেলায় দুজনে হাত ধরে একটা নামি মলের ভেতর ঘুরছিল। রিতিকা ওকে বলে, “পরের সপ্তাহে ড্যাড আর মাম্মা দিদির কাছে স্বুইজারল্যান্ড যাচ্ছে এক সপ্তাহের জন্য।”

দেবেশ জিজ্ঞেস করল রিতিকাকে, “হুম স্বুইজারল্যান্ড বেশ সুন্দর জায়গা, ত আমাকে কেন জানাচ্ছ?”

রিতিকা ফিসফিস করে কানে কানে বলল, “তার মানে আমি একা বাড়িতে, বুঝলে বুদ্ধু। শুধু চাকর থাকবে আর ড্রাইভার আর কেউ না।”

রিতিকার মতলব টা বুঝে ফেলল দেবেশ, রিতিকাকে একা পাবার জন্য অনেক দিন ধরে অপেক্ষা করছিল, নাগালের সামনে চলে এল সেই সুদিন। তাও রিতিকাকে রাগানর জন্য বলল, “ওকে আমি ড্রাইভার কে বলে দেব রাতে যেন তোমার রুমের মেঝেতে শোয়।”

দুমদুম করে দেবেশের বুকে কিল মারতে শুরু করল রিতিকা, “আই হেট ইউ, আই হেট ইউ… শেষ পর্যন্ত কিনা আমার কপালে জুটবে একটা ড্রাইভার। তুমি ভাবলে কি করে।”

দেবেশ রিতিকার কোমরে হাত দিয়ে জড়িয়ে ধরল, “আরে না বেবি, বল কোথায় যাবে।”

“তুমি আমাকে নিয়ে যাবে?” অবাক হয়ে প্রশ্ন করল রিতিকা। ও ভাবতে পারেনি যে দেবেশ ওকে নিয়ে বেড়াতে যাবার পরিকল্পনা পর্যন্ত করতে পারে।

“তেরে লিয়ে ত জান ভি হাজির হ্যায় জানাম, ব্যাস একবার ত বোল।” কপালে ছোট্ট চুমু খেয়ে বলল দেবেশ।

রিতিকা দেবেশ কে জড়িয়ে ধরে কাঁধে মাথা রেখে জিজ্ঞেস কর, “হানি তুমি ড্রাইভ করতে জানো?” মাথা নেড়ে জবাব দিল দেবেশ “হ্যাঁ”, “তাহলে চল সারিস্কা, এই পাশেই আছে বেশি দুরে নয়, শুধু আমি আর তুমি আমি ড্রাইভারকে পটিয়ে গাড়ি চেয়ে নেব।”

“ওকে বেবি ডান। নেক্সট সান্ডে তাহলে আমরা সারিস্কা যাচ্ছি।” দেবেশ রিতিকার কপালে ঠোঁট ছুঁইয়ে জবাব দিল।

একদিকে রিতিকার মন ছটফট করছে যে কবে রবিবার আসবে আর একদিকে দেবেশের মন ছটফট করছে যে কবে রবিবার আসবে। দু’জন দু’জানার আলঙ্গনে একে অপরকে সমর্পণ করে দেবে। একা থাকলে দেবেশ কি করবে সেই উত্তেজনায় রিতিকার রাতের ঘুম চলে গেল। বারে বারে নিজেকে আয়নায় দেখতে থাকে, কোথাও যেন মোটা হয়ে যায় না বা কিছুতে যেন কিছু কাটেনা। বাবা মা শনিবার রাতে প্লেনে চাপলেই, রবিবার সকাল বেলায় ও চলে যাবে দেবেশের বাহু পাশে। দেবেশ ত পাক্কা যে রিতিকা নিজেকে উজাড় করার জন্য যাচ্ছে, আর দেবেশ কেন থেমে থাকবে, ওর হাথেখড়ি ত অনেক আগেই হয়ে গেছে।

রবিবার দুপুরে রিতিকাকে নিয়ে দেবেশ রওনা দিল সারিস্কা উপাধ্যায় স্যারের গাড়ি চেপে। রিতিকা ঘুরতে যাবে তাই অনেক খোলা মেলা পোশাক পড়েছে। একটা বাদামি জিন্সের ক্যাপ্রি আর সাদা ট্যাঙ্কটপ। ক্যাপ্রি’ত রিতিকার কোমর থেকে হাঁটু পর্যন্ত চামড়ার সাথে লেপটে গেছে, আর উপরের ট্যাঙ্কটপ’টা রিতিকার স্তনের আয়তন আর কোমল পেটের সাথে লেপটে রয়েছে। দেবেশ একবার রাস্তার দিকে তাকায় একবার জুলু জুলু চোখে পাশে বসা যৌবনে ভরপুর রিতিকাকে দেখে। ওই রকম এক কচি মেয়েকে দেখে দেবেশের’ত গাড়ি চালাতে চালাতে অবস্থা খারাপ হয়ে যাবার যোগাড়।

পাশে বসে রিতিকা বেশ বুঝতে পারে দেবেশের মনের ভাব, মিচকি হেসে জিজ্ঞেস করে, “আমাকে দেখছ? ওই রকম ভাবে না দেখে গাড়ি চালাও ঠিক করে নাহলে আমাকে’ত আর দেখতে পাবে না তার বদলে যমের ষাঁড় আসবে আমাদের নিতে।”

প্রেম ঘন স্বরে দেবেশ রিতিকাকে বলল, “বেবি আই লাভ ইউ…”

রিতিকা দেবেশের গলা জড়িয়ে ধরে উত্তর দিল, “হানি আই লাভ ইউ টু মাচ।”

সন্ধ্যে হয়ে গেল সারিস্কা পৌঁছতে। আই আই টি পেয়েছে বলে দেবেশের বাবা ওকে অনেক টাকা দেয় হাত খরচের জন্য। পয়সার বিশেষ অভাব নেই দেবেশের। রিসোর্ট আগে থেকে বুক করা ছিল তাই বিশেষ বেগ পেতে হল না।

রাতের খাবারের পরে একা কামরায় দেবেশ আর রিতিকা। দুজনে যেন প্রহর গুনছে কে আগে কার ওপরে ঝাঁপাবে। দেবেশ দিল্লী থেকেই কনডমের প্যাকেট নিয়ে এসেছিল, জানত যে কাজে লেগে যাবে হয়ত কম পড়তে পারে। ঘরের মধ্যে একটা নীলচে আলো জ্বলছে। দেবেশ স্নান সেরে কোমরে একটা তোয়ালে পেচিয়ে বিছানায় বসে একটা সিগারেটে টান দিচ্ছে। রিতিকা, বাথরুমে স্নান করছে আর গান গাইছে।

দেবেশ ডাক দিল রিতিকাকে, “বেবি আর কত দেরি তোমার, আমি খুব টায়ার্ড, এবারে ঘুমিয়ে পড়ব কিন্তু।”

This Post Has One Comment

  1. Alok

    Excellent story.

Leave a Reply