পরমার পরাজয় ২য় পর্ব

এই সিরিজের অন্যান্য গল্প:

পরমা বলে উঠলো “বাজি?…মানে?…কিসের বাজি?..রাহুল তুমি… তুমি কি বলতে চাইছ খুলে বল”?রাহুল পাকা খেলোয়াড়ের মত বলে উঠলো
“কে ঠিক সেটা বোঝার একমাত্র রাস্তা হল গল্পের মত সত্যি সত্যি গেমটা খেলা। আমরা দুজনে যদি অরিজিনাল সিচুয়েশানটার মধ্যে নিজেদের ফেলি তাহলেই দুধ কা দুধ আর পানি কা পানি হয়ে যাবে। পরমার মুখ দেখেই বুঝলাম ও মুস্কিলে পরে গেছে। একগুঁয়ের মত তর্ক করতে করতে আমার বউ কখন যে ওর নিজের গর্ত নিজেই খুঁড়ে ফেলেছে তা ও বুঝতেও পারেনি। এখন আর ওর পরাজয় স্বীকার না করে পেছবার রাস্তা নেই। ও আমার দিকে একবার নার্ভাস ভাবে তাকাল।আমি চোখের ইশারায় ওকে বারন করলাম।
রাহুল ওর চোখের দিকে তাকিয়ে অল্প হেঁসে বললো -“পরমা তুমি যখন এত কনফিডেন্ট যে তোমার সংযম আর সতীত্ব আর পাঁচটা মেয়ের মত নয় তখন এস আমরা গেমটা খেলি আর তুমি সবাইকে প্রমান করে দাও যে তুমি ঠিক আর আমি ভুল। আর নাহলে তুমি তোমার পরাজয় স্বীকার করে নাও।সবাইকে বল যে তুমি আর পাঁচটা মেয়ের মতই সাধারন”।“বোকাচোঁদা, খানকীর ছেলে কোথাকার…… এমনভাবে ব্যাপারটাকে পরমার কাছে সাজাচ্ছে যাতে পরমার বিন্দুমাত্র সেল্ফ-রেসপেক্ট থাকলে ও যেন গেমটা খেলার ব্যাপারে আর না করতে না পারে” মনে মনে ভাবলাম আমি।
“কি পরমা কি করবে তুমি বল। খেলবে না সকলের সামনে পরাজয় স্বীকার করবে। দেখ সমগ্র নারীজাতির সম্মান তোমার হাতে” ।পরমার দিকে চোখ টিপে খি খি করে হাঁসতে হাঁসতে বললো রাহুল। আমি বুঝতে পারলাম তর্কে জেতার থেকে পরমাকে দিয়ে গেমটা খেলানোতেই ওর ইন্টারেস্ট বেশি। গেমটা গল্পের মত করে খেলতে পেলে রাহুল পনেরো মিনিট ধরে শুধু মাত্র নিজের হাত আর মুখ দিয়ে পরমার শরীরের যে কোন গোপন জায়গা ঘাঁটতে পারবে। সেটা ওর স্তন বা যোনিও হতে পারে।এবং সেটা হবে সকলের চোখের সামনে খোলাখুলি। মানে আমার বউ এর সমস্ত গোপনাঙ্গ যা এতদিন একমাত্র আমি দেখেছি, আজ তা সবাই উন্মুক্ত ভাবে দেখতে পারবে। মন বলছিল শত প্রলোভন সত্তেও ও যাতে রাজি না হয় গেমটা খেলতে, এর জন্য যদি ওকে হার স্বীকার করতে হয় তো করুক ও।পরমা কি ভুলে যাচ্ছে যে ও এখন শুধু আমার স্ত্রীই নয় এক বাচ্চার মা। আমি ওকে খোলাখুলি বারন করতে পারতাম কিন্তু সিচুয়েসনটা এমন অপমানজনক ছিল যে আমি নিজে পরমাকে জোর করে গেমটা না খেলানোয় বাধ্য করতে পারিনি।এতে করে সকলের সামনে আমার দুর্বলতাটা প্রকাশ পেয়ে যেত যে আমি নিজে আমার স্ত্রীর সতীত্ব আর সংযমের ওপর ভরসা রাখতে পারছিনা।
আমার দিকে পরমার কাতর দৃষ্টিতে তাকানোতেই বুঝলাম পরমা গেমটা খেলার ব্যাপারে রাজি হতে যাচ্ছে আর রাহুলের ছক্রবুহে বন্দি হতে যাচ্ছে। আমার রাগত মুখ দেখে পরমা তাও শেষ মুহূর্তে আরও একবার ভাবতে যাচ্ছিল যে ও কি করবে কিন্তু রাহুল ওকে আর সময় দিলনা। -“তাহলে পরমা তোমার মুখ দেখেই আমি বুঝতে পারছি যে তুমিও ছাড়ার পাত্রি নও। ঠিক আছে এসো…… আমরা দেখি কে যেতে এই প্রতিযোগিতায়। দেখ গেমটার নিয়ম কানুন সব আমরা গল্পের গেমটার মত রাখবো। তুমি জিতলে তোমার মতবাদই প্রতিষ্ঠিত হবে আর নেক্সট কয়েক ঘন্টায় তুমি আমাকে দিয়ে যা করাবে আমি তা করতে বাধ্য থাকবো। তুমি যদি আমাকে কানধরে ওঠবস করতে বল, নাক খত দিতে বল, এমনকি পার্টির প্রত্যেকের জুতো পালিশ করতেও বল তাতেও আমাকে রাজি হতে হবে।
অবশ্য আমি জিতলে আমি কি চাইবো তা তো তুমি জানই। গল্পেই আছে পরমাকে হেরে যাবার পর কি করতে হয়ে ছিল” পরমার ভারী বুকের দিকে একবার আড় চোখে দেখে নিয়ে বললো রাহুল।
রাহুলের কথা শুনে রাগে গাটা রিরি করতে লাগলো আমার। এই জন্যই বোকাচোঁদাটাকে এতো ঘেন্না করি আমি। কি নির্লজ্জ ভাবে সকলের সামনে ও বললো যে পরমা হারলে ও পরমাকে ভোগ করবে। ভীষন নার্ভাস লাগছিল আমার।আমি যেন মানসচক্ষে দেখতে পাচ্ছিলাম রাহুল পরমাকে নিয়ে আমাদের বেডরুমের খাটে শুয়ে আছে। ঘরের দরজা বন্ধ আমি জানলা দিয়ে দেখতে পাচ্ছি ওদের।রাহুলের মুখটা পরমার উন্মুক্ত স্তনে গোঁজা। একমনে পরমার মাই খাচ্ছে ও আর আমার বাচ্চাটা খাটের পাশে রাখা দোলনাতে শুয়ে চিলচিতকার করে হাত পা ছুঁড়ে ছুঁড়ে কাঁদছে। পরমার চোখে জল…..ওবাচ্চাটার দিকে কান্নাভেজা বিষণ্ণ দৃষ্টিতে তাকিয়ে তাকিয়ে রাহুলকে বুকের দুধ দিয়ে যাচ্ছে।
“যাঃ কি সব পারভার্টের মত আবলতাবল ভাবছি আমি। নিশ্চই নেশা ধরে গেছে আমার” ।মনে হল পরমা আর রাহুলের কান্ডকারখানাতে বিরক্ত আর উত্তেজিত হয়ে হাতের হার্ড-ড্রিংকের গ্লাস থেকে একটু তাড়াতাড়িই বেশি বেশি সিপ নিয়ে নিয়েছি বোধহয় আমি। সাধারণত আমি হাতে এক পেগ বা দুপেগ নিয়ে সারা পার্টি কাটিয়ে দি। আজকাল পরমার মত আমারো বেশি ড্রিংক করা আর সহ্য হয়না।বেশ ভয় পেয়ে গেলাম আমি……সর্বনাশ পরমাকে নিয়ে গাড়ি চালিয়ে বাড়ি যাব কি করে।তখনো তো জানতাম না যে আমার জন্য শেষে কি অপেক্ষা করে আছে।
“রঞ্জিত” পরমার ডাকে সম্বি ৎ ফিরল আমার। বুঝলাম ও আমার কাছে পারমিশন চাইলো। আমার রাগে ভরা বিরক্ত অথচ বিব্রত মুখ দেখে ও কি বুঝতে পেরেছে যে আমি এসব চ্যালেন্জ ট্যালেন্জের ব্যাপার একবারে পছন্দ না করলেও মুখে সকলের সামনে কোন প্রতিবাদ করতে পারবোনা। আর কোনভাবে প্রতিবাদ করে আমার দুর্বলতার প্রদর্শন করে ফেললে,ও ওর পিছিয়ে যাবার একটা রাস্তা পেয়ে যাবে।সবাই বুঝবে ওর স্বামী ভিতু, ওর সতীত্ব আর সংযমের ওপর তার কোন ভরসা নেই। ভিতু স্বামীটা চাইছেনা তাই ওকে পিছিয়ে যেতে হচ্ছে।কিন্তু না রাহুল ওকে ওই সুযোগ দিতে রাজি ছিলনা। রাহুল চট করে বলে উঠলো -“না না পরমা রঞ্জিতদার দিকে তাকালে হবে না, রঞ্জিতদা তো তোমার মত আমার সাথে তর্ক করেনি। ওঁকে এর মধ্যে টানা উচিত হবে না।এই ডিশিসান তোমাকেই নিতে হবে। অল্প নেশাগ্রস্থ পরমা আর কথা বাড়ালোনা। ও বলে উঠলো -“ঠিক আছে রাহুল আমি রাজি। দেখি কে যেতে কে হারে”।সবাই হই হই করে উঠলো পরমার কথা শুনে।সবাই তখন মজা পেয়ে গেছে ব্যাপারটায়।
আমি দেখেছি দিলিপ আর সুদিপার পার্টিতে যারা আসে তারা সমাজের একটু ওপরতলার লোক। ওপেনলি সেক্স ফেক্স করতে এদের কোন লজ্জা ফজ্জা নেই। পার্টিতে মাল খেয়ে এর ওর বউয়ের সাথে লটরঘটর করা খুব কমন ব্যাপার। এতে কেউ কিছু মনে করেনা।বউ বদলা বদলির মত ব্যাপারও তলে তলে চলে এখানে। আসলে এরা সমাজের তথাকথিত ধনী ও অভিজাত শ্রেনীর লোক। মধ্যবিত্ব মানসিকতা বা নৈতিকতার অপরাধবোধ এদের নেই। আমার বাবা স্কুলমাষ্টার ছিলেন বলে আমি মধ্যবিত্ব মানসিকতায় বিশ্বাসি। তাই এসব ব্যাপার আমার নষ্টামি বলে মনে হয়।তবে মোটা মাইনের চাকরি আর জনসংযোগ বজায় রাখতে গিয়ে আমাকেও এখন ওদের সাথে একটু মানিয়ে চলতে হয়। নাহলে এই সব হোলি পার্টি ফার্টি আমার একবারে চক্ষুষুল।
রাহুল একটু চেঁচিয়ে বলে উঠলো -“আস্তে আস্তে…… সবাই একটু চুপ করুন। পরমা তুমি গেমটা ঠিকমতো বুঝতে পেরেছোতো? আমি তোমাকে মাত্র পনেরো মিনিটের মধ্যে উত্তেজিত করে বলতে বাধ্য করবো “রাহুল আমি তোমার সাথে শুতে চাই………তোমার সাথে মৈথুন করতে চাই”।
রাহুলের কথা শুনে আমার শিরদাঁড়ার মধ্যে দিয়ে কেমন যেন একটা ভয়ের স্রোত নেবে গেল।কি নির্লজ্জভাবে বললো হারামিটা যে ও আমার বউের সাথে শোবে, আমার সন্তানের জননী, আমার আদরের পরমা ওর সাথে নাকি শারীরিক ও যৌনসঙ্গমে মেতে উঠতে বাধ্য হবে।
রাহুল বলেই চললো -“আমি তোমাকে উত্তেজিত করতে কি কি করতে পারব শোন। দাঁড়াও গল্পের প্রিন্টআউটটা আগে বার করি”। এই বলে ও পকেট থেকে প্রিন্টআউটটা বার করে পড়তে শুরু করলো। “পরমা আমি তোমাকে স্পর্শ করতে পারবো, তোমাকে চুম্বন করতেও পারবো। তবে শুধু মাত্র আমার হাত দিয়ে এবং আমার মুখ দিয়ে। আমি যদি জিতে যাই তাহলে আমি কি পাব তা তো তুমি জান কিন্তু আমি যদি হেরে যাই তাহলে নেক্সট তিন ঘন্টায় তুমি আমাকে দিয়ে যা খুশি তাই করাতে পারবে। তবে এমন কিছু করাতে পারবেনা যাতে আমার প্রচণ্ড শারীরিক আঘাত লাগে বা কোন শারীরিক ক্ষতি হয় বা আমাকে বাধ্য করতে পারবেনা কাউকে শারীরিক আঘাত দিতে। এছাড়া তুমি আমাকে দিয়ে কোন আইন বিরুদ্ধ কাজও করাতে পারবেনা। ঠিক আছে………চল শুরু করা যাক”।
আমার দিকে একটা মুচকি হাসি হেঁসে রাহুল ঘরের ভেতরে রাখা একটা সোফার দিকে এগিয়ে গেল। সবাই রাহুলের পেছন পেছন ওর সাথে যেতে লাগলো ।সোফাতে যে স্বামী স্ত্রীর জুড়িটি বসে ছিল তারা তাড়াতাড়ি উঠে গিয়ে ওকে জায়গা করে দিল।
রাহুল নিজের হাতঘড়ি টা খুলে সোফার পাশে রাখা একটা ছোটো টেবিলে রাখলো। -“আমার এই হাতঘড়ি তে স্টপওয়াচ আছে আর সেই সাথে আমি অ্যালার্ম দিয়েও দিচ্ছি। ঠিক পনেরো মিনিট পর অ্যালার্ম বাজবে। আপনারা যারা নিজের ঘড়িতে টাইম দেখতে চান তাঁরা আমার ঘড়ির সাথে নিজেদের সময় মিলিয়ে নিন”।“একমিনিট” এবার পরমার গলা পেলাম।
-“রাহুল তুমি তো বলছিলে ওই গল্পে যা আছে, যে ভাবে আছে তুমি গেমটা ঠিক সেই ভাবে খেলতে চাও”। “হ্যাঁ…ঠিক তাই” রাহুল বললো।“তাহলে গল্পের মত কাউকে প্রতিমিনিট অন্তর বলতে হবে কত মিনিট হলো”। সুদিপা তাড়াতাড়ি বলে উঠলো
-“ঠিক আছে আমি এই দায়িত্বটা নিচ্ছি”।
রাহুল পরমার দিকে তাকিয়ে হেঁসে বললো
-“পরমা মনে হচ্ছে তুমি এখন আর আগের মত নিশ্চিত নও যে তুমি জিতবে”। -“কেন”?পরমা জিজ্ঞেস করলো। -“কারন আমার মনে হচ্ছে তুমি চাও প্রতিমিনিটেই তোমায় কেউ মনে করিয়ে দিক যে আর কতক্ষণ তোমাকে টিকে থাকতে হবে। তুমি কিছুক্খন আগে এমন ভাবে বলছিলে যেন পনেরো মিনিট তো দূর পনেরো বছরেও আমি তোমাকে পোষমানাতে পারবোনা। -“হ্যাঁ তাই তো…… তুমি পারবেনা কোন দিনো…… তুমি যদি চাও সুদিপা কে প্রতিমিনিটে টাইম বলতে হবেনা” ।- “এত সাহস! আর একবার ভেবে দেখ ডার্লিং” রাহুল বললো। রাহুলের মুখে ডার্লিং কথাটা কেমন যেন খট করে আমার কানে লাগলো।পরমা বললো -“ও তোমায় ভাবতে হবেনা”।
রাহুল-“ঠিক আছে তাহলে খেলা শুরুর আগে আর একটা করে চুমুক হয়ে যাক ড্রিঙ্কে”
পরমা- “ঠিক আছে”
সুদিপা রাহুলের স্টপ-ওয়াচটা নিয়ে ব্যাস্ত হয়ে পড়লো, প্রতি পাঁচ মিনিট অন্তর অ্যালার্ম দিতে আর পনেরো মিনিট স্টপ-ওয়াচ টাইম সেট করতে।
রাহুল আর পরমার গ্লাসে ড্রিংক দিয়ে দেওয়া হল। ওরা নিজেদের গ্লাসে একেকটা বড় বড় চুমুক দিয়ে গ্লাস দূরে সরিয়ে রাখলো। চারপাশে আট দশ জন যারা তখনো বাড়ি যায়নি তারা নিজেদের মধ্যে কে জিতবে কে হারবে তাই নিয়ে চাপা গলায় আলোচনায় মেতে উঠলো ।আমি কান পেতে শুনলাম ওদের মধ্যে দুজন নিজেরদের মধ্যে বেট ফেলছে রাহুলের মত সুপুরুষ স্মার্ট ছেলের সামনে আমার বউ কতক্ষণ টিকবেতাই নিয়ে। পরমা আর রাহুল সোফার দুই দিক থেকে একটু কাছে সরে এসে বসলো। ওদের থেকে ফুট তিনেক মত দুরত্বে সুদিপা আর দিলিপ দাঁড়িয়ে। সুদিপার হাতে রাহুলের স্টপওয়াচ।
বাকি সবাই ওদের কে ঘিরে যে যার সুবিধা মত দাঁড়িয়ে।আমি সুদিপার ঠিক কাঁধের কাছে আর একটা ড্রিংকের গ্লাস নিয়ে দাঁড়ালাম। এখান থেকে সুদিপার হাতের স্টপওয়াচটাও দেখা যাচ্ছে আর রাহুলপরমাদেরও।রাহুল আর পরমা দুজনে আরো কাছাকাছি সরে এসে বসলো। রাহুল নিজের হাতটা সোফার পেছন দিয়ে নিয়ে গিয়ে আলতো করে পরমার কাঁধে রাখলো। তারপর নিজের মুখটা পরমার মুখের একবারে কাছে নিয়ে এসে বললো-“একটা কথা পরমা। আমারা যেই হারি বা যেই জিতি আমাদের মধ্যে বন্ধুত্তের সম্পর্ক যেন নষ্ট না হয়”।এই বলে রাহুল পরমার চোখের দিকে তাকিয়ে মিষ্টি করে হাসলো। পরমাও রাহুলের দিকে তাকিয়ে অল্প হেঁসে মাথা নেড়ে সম্মতি জানালো।-“আরো একটা কথা পরমা, তুমি যে ভাবে একা মেয়েদের সংযম নিয়ে লড়লে তাদেখে ভাল লাগলো। কই আরো তো মহিলা ছিল এই পার্টিতে, কেউ তো তোমার মত রুখে দাঁড়ালোনা। তুমি অন্য সকলের চেয়ে একটু আলাদা এটা তো মানতেই হবে আমাকে”।
রাহুল এর পর একটা ভুবন ভোলানো হাঁসি দিল পরমাকে। পরমাও ওর চোখের দিকে তাকিয়ে একটু লজ্জা লজ্জাভাব করে হেঁসে তার প্রত্যুত্তর দিল।
হটাত আমার চোখ গেল রাহুলের হাতের দিকে।
বোকাচোঁদাটা কখন কথা বলার ফাঁকে ফাঁকে পরমার ঘাড়ের সেনসিটিভ জায়গাটাতে আঙ্গুল দিয়ে সুড়সুড়ি দিতে শুরু করেছে।আমি ভাবলাম সুদিপা কে একবার বলি যাতে ও স্টপওয়াচটা চালু করে, কিন্তু পরমা কোন প্রতিবাদ করছেনা দেখে আমি চুপ করে গেলাম।রাহুল পরমার চোখের দিকে একদৃষ্টিতে তাকিয়ে ফিসফিস করে বলে উঠলো -“এই পরমা আর একটু আমার কাছে সরে এসে বসনা, আমরা গেমটা এবার শুরু করি”।পরমা রাহুলের আরো একটু কাছে সরে এসে ঘন হয়ে বসলো। ঘরে যেন একটা পিন পরলে শব্দ পাওয়া যাবে।
রাহুল হাঁ করে পরমার নরম ফোলাফোলা ঠোঁট দুটোর দিকে দেখতে লাগলো তারপর ফিসফিস করে বললো তোমার ঠোঁট দুটো কি নরম পরমা।
পরমা কোন উত্তর দিলনা।রাহুলের ঠোঁট আস্তে আস্তে পরমার ঠোঁটের দিকে এগিয়ে যেতে লাগলো। সুদিপার গলা পেলাম -“স্টপওয়াচ চালু করা হল”।রাহুলের ঠোঁট পরমার নরম ঠোঁটের একবারে কাছে গিয়ে থামলো। মাত্র কয়েক মিলিমিটার দূরত্ব এখন ওদের ঠোঁট জোড়ার মধ্যে।পরমা রাহুলের উত্তপ্ত ঠোঁটের চুম্বন পাওয়ার আশংকায় একটু যেন শক্ত হয়ে বসলো। রাহুল কিন্তু ওর ঠোঁট স্পর্শ করলোনা অথচ নিজের ঠোঁট ওখান থেকে একচুল নাড়ালোও না।রাহুল এক দৃষ্টিতে পরমার নাকের পাটিটার দিকে তাকিয়ে রইল।
প্রায় একমিনিট হতে চললো আথচ রাহুলের ঠোঁট ওখান থেকে নড়ার নামগন্ধ নেই। রাহুল মগ্ন হয়ে পরমার নাকের ফুটো দুটো দেখে চলেছে।এমন ভাবে দেখছে যেন ওগুলো পরমার যোনিছিদ্র আর পায়ুছিদ্র। পরমা অস্বস্তিতে একবার এদিকে তাকাচ্ছিলো তো একবার ওদিকে তাকাচ্ছিল। কিন্তু থেকে থেকেই কোন এক দুর্দম চুম্বকিয় আকর্ষণে ওর চোখ বার বার ফিরে ফিরে আসছিল রাহুলের পুরুষ্টু পুরুষালী ওই ঠোঁট জোড়ার দিকে। যে কোন মুহূর্তে রাহুলের পুরুষালী ঠোঁট জোড়ার গভীর চুম্বন পাওয়ার আশংকায় কিংবা ঔৎসুক্কে ও ভেতরে ভেতরে ভীষণ উত্তেজিত হয়ে পড়েছিল। আর শুধু পরমা নয় ওই ঘরের সবাই একই রকম উত্তেজিত হয়ে পরছিল ভেতর ভেতর।সবাই প্রতীক্ষা করেছিল কখন ঘটবে রাহুল আর পরমার প্রথম চুম্বন।একটু পরে পরমা হয়তো বুঝলো রাহুল ওর নাকের ফুটো দুটির মধ্যে ওর গোপনাঙ্গের কোন দুটি ছিদ্রর মিল খুঁজছে। দেখতে দেখতে পরমার নিস্বাস ঘন হয়ে এল।ওর নাকের পাটি দুটি ফুলে ফুলে উঠতে লাগলো ওর ঘন ঘন নিঃশ্বাসে।রাহুল আর দেরি না করে ওর ঠোঁট দুটো আলতো করে চেপে ধরলো পরমার ফোলাফোলা ঠোঁটে।ঘরময় ঘন নিঃশ্বাস ছাড়ার শব্দে ভরে উঠলো। সবাই যেন একসঙ্গে হাঁপ ছেড়ে বাঁচলো। হ্যাঁ…… হয়েছে…হয়েছে রাহুল আর পরমার সেই বহু প্রতিক্ষিত চুম্বন।রাহুলের ঠোঁট আলতো করে লেগেছিল আমার বউএর ঠোঁটে। কিন্তু রাহুলের চোখ গভীর ভাবে চেপে বসে ছিল পরমার চোখে।
একদৃষ্টিতে পরমার চোখের মনির দিকে তাকিয়ে ছিল রাহুল।পরমা রাহুলের চোখে চোখ রেখে খোঁজার চেষ্টা করছিল যে রাহুল ওর চোখের মধ্যে কি খুঁজছে।
রাহুলের ঠোঁট এবার আর আলতো করে নয় একবারে চেপে বসলো আমার বউটার নরম ফোলফোলা ঠোঁটে।রাহুলের ঠোঁট জোড়া পরমার ঠোঁট জোড়াকে পরিপুর্নভাবে অনুভব করতে লাগলো
,যেন শুষে নিতে লাগলো পরমার ঠোঁটের সমস্ত উষ্নতা আর কমনীয়তা।কয়েক সেকেন্ড পরে আমার মনে হল পরমার মাথাটাও যেন একটু নড়ে উঠে অল্প সামনে এগিয়ে গেল। তাহলে কি পরমার ঠোঁটও পাল্টা চাপ দিচ্ছে রাহুলের ঠোঁটে, মানে পরমা কি রাহুলের চুম্বনে সাড়া দিল।ওর ঠোঁটও কি পাল্টা চেপে বসেছে রাহুলের ঠোঁটে, পাল্টা শুষে নিতে চাইছে রাহুলের ঠোঁটের সমস্ত রুক্ষতা। এবার রাহুল নিজের মুখটা অল্প ফাঁক করে নিজের জিভ এগিয়ে দিল।যদিও বাইরে থেকে কিছু ভালভাবে বোঝা যাচ্ছিলনা তবুও আমি বেশ অনুভব করতে পারছিলাম রাহুলের জিভ প্রবেশ করতে চাইছে পরমার নুখের ভেতর।পরমার নরম উষ্ণ জিভের সাথে সেমেতে উঠতে চাইছে ঘষাঘষির খেলায়। পরমার মুখোগহব্বের স্বাদ কেমন তা চাখতে চাইছে রাহুল।পরমা বোধহয় নিজের ঠোঁটে ঠোঁট চেপে ধরে আটকাতে চাইছে রাহুলকে।একটু চাপাচাপির পর পরমার চোয়ালটা যখন একটু নিচের দিকে ঝুলে পড়লো তখন বুঝলাম পরমা রাহুলের দাবি মেনে নিল।ওর জিভকে প্রবেশ করতে দিল নিজের মুখোগহ্বরে।জানিনা পরমার মুখের ভেতর কি চলছে কিন্তু আমার শরীরে যেন বিদ্যুতের ঝিলিক খেলে গেল যখন আমি বুঝলাম পরমার একটি ছিদ্র দখল করে নিল রাহুল । হ্যাঁ… পরমার মুখছিদ্র। তবেকি রাহুল আস্তে আস্তে পরমার আরো দুটি ছিদ্র দখল করে নেবে?
(চলবে)

এই সিরিজের অন্যান্য গল্প:

This Post Has 3 Comments

Leave a Reply