গুণধর শ্বশুরঃ ৩য় ভাগ

এই সিরিজের গল্পগুলি:

গুণধর শ্বশুরঃ ১ম ভাগ

গুণধর শ্বশুরঃ ২য় ভাগ ১

গুণধর শ্বশুরঃ ২য় ভাগ ২

গুণধর শ্বশুরঃ ৩য় ভাগ

গুণধর শ্বশুরঃ ৪র্থ ভাগ

“বগলা, হরি ও রাখালের পূর্ব ইতিহাস”

বছর পঁচিশ আগের কথা,

বগলার বৌদি সম্ভোগ:

আজ থেকে প্রায় পচিশ বছর আগের কথা, বগলা ও হরি তখন দুজনেই পচিশ বছরের দুই যুবক। বগলা ও হরি একই কয়েনের দুই পিঠ, দুজনেই যেমন ধূর্ত আর তেমনি বদ চরিত্রের। রতনে রতন চেনে তেমনি দুজনের হলায় গলায় বন্ধুত্ব অথচ দুজনের কেউ কাউকে বিশ্বাস করে না। চেহারায় দুজন দুই মেরুর, বগলা লম্বা, চওড়া, সুস্বাস্থের অধিকারী আর হরি রোগা, পাতলা, চিমসে টাইপের। কিন্তু স্বভাবে দুজনের অসম্ভব মিল, দুজনেই অর্থপিশাচ ও নারীলোভী। অর্থের জন্য দুজনেই চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, প্রতারণা এমন কি খুন জখম করতেও পিছপা হয় না। আবার ডবকা মেয়েছেলে চোখে পরে গেলে তাকে তুলে এনে ধর্ষণ করতেও এদের আটকায় না। বগলার দাদা মঙ্গলাচরণ ছিলেন নিপাট ভদ্রলোক, তার এই ভালোমানুষির জন্য লোকে পেছনে তাকে ‘বগলার দাদা ছাগলা’ বলে ডাকত। মঙ্গলা বগলার থেকে পাঁচ বছরের বড় আর মঙ্গলার স্ত্রী রম্ভা স্বামীর চেয়ে আট বছরের ছোট, তাদের দুই মেয়ে বড়টির নাম সতী ও ছোটটির নাম সাবিত্রী। মঙ্গলার স্ত্রী রম্ভা স্বর্গের অপ্সরী রম্ভার মত সুন্দরী না হলেও দেখতে ভালই। রম্ভার গায়ের রং খুব ফর্সাও নয় আবার কালোও নয় মাঝামাঝি, মুখশ্রীতে ছিল অদ্ভুত একটা চটক যেটা একবার কারো চোখে পড়লে সে দ্বিতীয়বার না তাকিয়ে থাকতে পারত না। মঙ্গলা যতটা শান্ত প্রকৃতির তার বউ রম্ভা ততটাই প্রানবন্ত। রম্ভার ভারী স্তন আর ওল্টানো তানপুরার মতন ভরাট পাছা যে কোন পুরুষের মাথা ঘুরিয়ে দেবার পক্ষে যথেস্ট আর সেখানে বগলার মত দুঃস্চরিত্র লোকের তো কথাই নেই। কিন্তু সেই দুঃস্চরিত্রের বগলা দাদার ভালমানুষীকে প্রকাশ্যে যতটা অভক্তি দেখাত ভেতরে ততটাই ভক্তি করত। ঘরেতে রম্ভার মত ডবকা বৌদি থাকতেও সেদিকে বগলার মত লোকের হাত না বাড়ানো দেখে হরি পর্যন্ত অবাক হয়ে যেত। বৌদির মত ডবকা শরীর থেকে সে দুরে থাকত যে কি কারণে সেটা দাদার প্রতি তার ভালবাসা না শ্রদ্ধা সেটা বগলা নিজেও জানে না।
নিয়তির লেখা খন্ডাবে কে, হঠাতই মঙ্গলা বাস এক্সিডেন্ট মারা যায়, তখন তার বড় মেয়ের বয়স চার। এই অকাল বৈধব্য রম্ভার জীবনটাই পাল্টে দেয়। মানুষের মন বড়ই বিচিত্র, বগলা মঙ্গলার বডি দাহ করে ফিরে এসে দেখে বৌদি খাটের এক কোনে বসে কাঁদছে আর মেয়েদুটো ঘুমিয়ে পড়েছে, তারা যে কি হারাল সেটা বোঝার বয়স তখন তাদের হয়নি। রম্ভার পাশে বসে প্রতিবেশী কাকিমা রম্ভাকে সান্তনা দেবার চেষ্টা করছে, ঘর ভর্তি লোক, যে যার নিজের মত করে মঙ্গলার স্মৃতিচারণ করছে। দেখতে দেখতে অনেক রাত হয়ে গেল, এক এক করে সবাই বিদায় নিল, ঘরেতে শুধু একটা চেয়ারে বগলা বসে, খাটের উপর মঙ্গলার দুই মেয়ে ঘুমিয়ে, খাটের এক কোনে মাথা নিচু করে চুপ করে বসে আছে রম্ভা আর প্রতিবেশী কাকিমা রম্ভার পাশে বসে মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছে। হঠাত কারেন্ট চলে গেল, বগলা হাঁক দিতেই একটা চাকর ঘরেতে একটা হারিকেন রেখে গেল। কারো মুখে কোন কথা নেই শুধু মাঝে মাঝে রম্ভার ফুঁপানো শোনা যাচ্ছে, এইভাবে বেশ কিছুক্ষন কেটে যাবার পরে কাকিমা উঠে এসে বগলাকে বলল রম্ভার মেয়ে দুটোকে সে তাদের বাড়িতে নিয়ে যাচ্ছে আর আজ রাতটা সে মেয়ে দুটোকে তাদের কাছেই রাখছে। বগলা ঘার নেড়ে সম্মতি দিল, কাকিমা যাবার আগে রম্ভাকে আজ রাতটা চোখে চোখে রাখতে বলে বগলাকে সতর্ক করে গেল।
ঘরেতে দুটো প্রাণী কিন্তু কারো কোন সাড়াশব্দ নেই, দুজনেই নির্বাক, ম্রিয়মান। হারিকেনটা দপ দপ করতে করতে নিভে গেল, বগলা বা রম্ভা কারো আর একটা হারিকেন লাইট দিতে বলার কোন আগ্রহ বা ইচ্ছে দেখা গেল না, দুজনকেই হয়ত অন্ধকার খানিকটা স্বস্তি দিচ্ছে। ঘরে পূর্নিমার চাদের আলো জানালা গলে এসে এক অদ্ভুত মায়াবী পরিবেশের সৃষ্টি করেছে। বগলার মত লোক যে নিজের ছাড়া আর কিছু ভাবে না সেই বগলার দাদার মৃত্যুতে ভেতরটা খালি খালি লাগছে। রম্ভা তার দেবরকে অনেকদিন ধরেই চেনে, সে খানিকটা অনুভব করতে পারছে তার দেবরের কষ্টটাকে। রম্ভার বগলাকে মাথা নিচু করে বসে থাকতে দেখে ভেতরটা মুচড়ে উঠল, ভাবল এই ছেলেটা গত দুদিন ধরে পাগলের মত দৌঁড়ে গেছে, এক্সিডেন্টের জায়গা থেকে হাসপাতাল, হাসপাতালে যমে মানুষের লড়াই, আজ সকালে সব শেষ, তারপরে মর্গ থেকে বাড়ি, বাড়ির থেকে শ্মসান এইসব একা হাতে সামলেছে, একফোঁটা চোখের জল ফেলেনি উল্টে সবাইকে সান্তনা দিয়েছে। সবাই কেঁদে কিছুটা হলেও হালকা হতে পেরেছে, রম্ভার মনে হল যে স্বামীর শোকে তার জীবনটা মরুভূমি হয়ে গেছে আর দাদার শোকে তার দেবরের ভেতরটা পুরে ছারখার হয়ে যাচ্ছে, দেবরের একটু কাঁদা দরকার, এই মনে করে রম্ভা বগলাকে কাছে ডাকল।

বগলা উঠে এসে বৌদির পাশে বসল, রম্ভা বগলার একটা হাত ধরল, বগলা মুখ তুলে বৌদিকে দেখল, বগলার সমস্ত সংযম ভেঙ্গে গেল, তার ভেতরের দুখ্য, কষ্ট, যন্ত্রনা সব এক হয়ে বেরিয়ে এল বুকফাটা কান্না হয়ে। বগলার বুক ঠেলে বেরিয়ে এল কান্না, রম্ভা দেবরের মাথাটা নিজের বুকের উপর টেনে নিল, বগলার শত চেষ্টাতেও তার কান্না বাঁধ মানল না তা দ্বিগুন বেগে বেরিয়ে এল, বগলার অশ্রুজলে রম্ভার বুক ভেসে গেলেও রম্ভা আটকালো না তার দেবরের কান্নাকে। বগলা তার বৌদিকে দুহাতে আকঁড়ে ধরে কাঁদতে লাগল, রম্ভার অশ্রুজল বগলার মুখে এসে পড়ল, দুজনেই একে অপরকে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে লাগল। কতক্ষন ধরে তারা কেঁদেছে তা তারা নিজেরাই জানে না, বেশ কিছুক্ষন পরে দুজনের কান্নার বেগ কমে এল। বগলার মাথাটা বুকের উপর চেপে রম্ভা আস্তে আস্তে তার মাথায় হাত বুলিয়ে দিতে লাগল, ভাল লাগার আবেশে বগলার চোখ বুজে এল। গত দুদিন ধরে তার উপর যে ঝড় বয়ে গেছে তাতে তার মনটা অস্থির হয়ে ছিল, দমবন্ধ লাগছিল। এখন বৌদির বুকের উপর মাথা রেখে কেঁদে তার অনেকটা নিজেকে হালকা লাগছে, মনটা অনেক শান্ত হয়েছে। মানুষ চরম দুক্ষে কাউকে সমব্যথী পেলে তাকে যেমন আকঁড়ে ধরে দুঃখ ভোলার চেষ্টা করে ঠিক সেরকমই বগলা ও রম্ভা একে অপরকে জড়িয়ে ধরে খানিকটা মানসিক শান্তি পেতে চাইল।
পূর্নিমার চাদের মিষ্টি আলো ঘরের জানালা গলে খাটের উপর এসে পড়েছে আর খাটের উপরে দুই নর নারী একে অপরকে জড়িয়ে ধরে বসে এই দমবন্ধ করা কষ্ট থেকে রেহাই পেতে চাইছে, দুজনের দুজনকে ভীষন আপন লাগছে। ঘরের দরজা খোলা একথা সম্পুর্ন ভুলে গিয়ে দুজনে দুজনকে জড়িয়ে ধরে এক অদ্ভুত ঘোরের মধ্যে রয়েছে। দুজনের একে অপরের সান্নিধ্যে এসে বুকের উপর চেপে বসা কষ্টটা অনেক লাঘব হয়েছে। দুজনের অস্থিরতা কমে আসতেই বগলা রম্ভার শরীরের মিষ্টি গন্ধ পেল, মাথার নিচেই রম্ভার সুডৌল স্তনের খাঁজ দেখতে পেল, বগলা আস্তে মাথাটা একটু নামিয়ে নাকটা গুঁজে দিল দুই স্তনের খাঁজের মধ্যে, জোরে নিশ্বাস টেনে রম্ভার শরীরের ঘ্রান নিল। অদ্ভুত সুন্দর একটি গন্ধ পাচ্ছে বগলা, কোন মেয়ের শরীরে এত সুন্দর গন্ধ সে আগে কোনদিন পায়নি। রম্ভার বুকের উপরে মাথা রেখে বগলার গত দুদিনের সমস্ত ক্লান্তি মুছে গেল, হাতটা দিয়ে রম্ভার কোমরটা জড়িয়ে ধরে বগলা মাথাটা রম্ভার দুই স্তনের উপর চেপে ধরল। সব কিছু হারিয়ে গেলে মানুষ যেমন খরকুটো আকঁড়ে ধরে বাঁচতে চায় সেরকমই রম্ভা দুহাতে বগলাকে জড়িয়ে ধরে বুকের উপর চেপে ধরল যেন বুকের খালি হয়ে যাওয়া জায়গায় বগলাকে বসিয়ে নিতে চাইল। রম্ভার বুকে লেপ্টে থেকে তার শরীরের উত্তাপটি বগলার বেশ ভালো লাগছে, এমন উত্তাপ আগুনে আসে না।


স্তনের উপরে বগলার ঠোঁটের ছোঁয়ায় রম্ভার শরীরে অদ্ভুত শিহরন জেগে উঠল, আরো বেশী শিহরন জাগানোর জন্যই বোধহয় বগলা তার মাথাকে স্তনের উপর ঘষতে লাগল ফলে রম্ভার বুক থেকে আঁচলটা খসে গেল, কিন্তু আঁচটা তুলে লজ্জা নিবারণের কোন ইচ্ছা তার মধ্যে দেখা গেল না। বগলার কস্ট সহ্য করতে না পেরে তাকে সান্তনা দেবার জন্য রম্ভা যখন তাকে বুকের উপর টেনে নিয়েছিল তখন তার মধ্যে ছিলনা কোন যৌনতার কামনা, কিন্তু এখন বগলার জিভের স্পর্শ দুই স্তনের খাঁজে পেয়ে কিছুক্ষনের জন্য সম্বিত হারিয়ে ফেলল রম্ভা।


চাঁদের স্নিগ্ধ আলোয় বগলার কাছে রম্ভাকে তখন আকাশ থেকে নেমে আসা অপ্সরীর মত লাগছিল, রম্ভারও এই স্বপ্নময় পরিবেশে বগলাকে বুকের মধ্যে জড়িয়ে বসে থাকতে দারুন লাগছিল। রম্ভার ঠোঁট বগলাকে তীব্রভাবে টানছিল, দুঁঠোট দিয়ে রম্ভাকে চেপে ধরল বগলা। রম্ভার মুখখানি নামিয়ে এনে চাঁদের স্নিগ্ধ আলোর নিচে ওরা দুই মানব মানবী একে অপরকে চুমু খেতে খেতে একজন যেন আরেকজনের মধ্যে হারিয়ে যাচ্ছিল। এক অবারিতে চুম্বনে ছিঁড়ে দিতে চায় সব দ্বিধা। রম্ভার জিভের স্বাদ এখন বগলার ঠোঁটের ভেতরে। চুমু খেতে খেতে বগলার হাত রম্ভার নগ্ন পেটের উপর ঘুরে বেড়াচ্ছিল। দুজোড়া ঠোঁট, হাত, পা আর দুটো শরীর ক্রমশ এক হতে থাকে। হঠাৎ করে রম্ভার ব্লাউজে ঢাকা স্তনে বগলার একটা হাত পড়তেই রম্ভা কেঁপে উঠল। বগলা হাত সরিয়ে নিতেই রম্ভা বগলার হাতটা টেনে ওর স্তনের উপর চেপে ধরল। বগলা রম্ভার স্তনের স্পর্শ পেয়ে অন্যরকম এক অনুভুতির সাগরে ভেসে গেল, সে তার সমগ্র অনুভুতিকে একাগ্র করে ব্লাউজের উপর দিয়ে স্তন দুটিতে হাত দিয়ে আলতো করে টিপে টিপে আদর করতে লাগল। চাদের আলোয় রম্ভার চোখের দিকে তাকিয়ে বগলা দেখল টানা টানা চোখদুটো থেকে যেন কামাগ্নি ঝরে পড়ছে আর সেই আগুনে দাউ দাউ করে জ্বলছে বগলার কামাঘ্ন হৃদয়। বগলা কিছু বলতে যেতেই রম্ভা বগলার ঠোঁটের উপর নিজের তর্জনীটা রেখে চুপ করিয়ে বগলার কানের লতিটাকে আলতো করে কামড়িয়ে চুষতে লাগল।
রম্ভা বগলার গালে, কপালে, ঠোঁটে, সারা মুখে চুমুতে চুমুতে ভরিয়ে দিল। দুজনেরই স্বপ্নের অতীত যে এইরকম সন্ধিক্ষনে তারা এইরকম সম্পর্কে জড়িয়ে পরবে। নিজের বুকের সাথে লেপ্টে থাকা রম্ভার বড় বড় স্তন দুটোর ঘন ঘন ওঠা নামা বগলার বহুদিনের লুক্কায়িত যৌনতৃষ্ণাকে ক্রমশ বাড়িয়ে তুলল। রম্ভাকে ঠেলে সোজা করে বসিয়ে দিয়ে দু হাত দিয়ে তার সুপুষ্ট স্তনদুটোকে নিচের থেকে চেপে ধরে বাম স্তনটাকে কামড়ে ধরল বগলা ব্লাউজের ওপর দিয়ে। সুডৌল স্তনের নিচের দিকে পুরুষ্টু দুই হাতের চাপে স্তনদুট এক জায়গায় জড়ো হয়ে ব্লাউজের ওপর দিকে ঠেলে বেরিয়ে এল। আর চেপে ধরা বুকের গভীর খাঁজে জিভ দিয়ে চাটতে লাগল বগলা। উত্তেজনায় সিতকার দিয়ে রম্ভা বগলার চুলগুলোকে হাতের মুঠিতে চেপে ধরল। ব্লাউজের নিচে রম্ভার স্তন দুটোর সৌন্দর্য দেখার জন্য উতলা হয়ে বগলা আস্তে আস্তে রম্ভার ব্লাউজটা খুলে দিল, রম্ভা নিজেই নিজের ব্রা খুলে দিল। রম্ভার পিনোন্নত হালকা বাদামী রঙের শক্ত নিপিলসের সুপুষ্ট স্তনদুটো লাফিয়ে বেরিয়ে এল। জানালা দিয়ে আসা চাদের আলোয় রম্ভার নগ্ন স্তন দুটো দেখে মনে হচ্ছিল এর কাছে পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ কারিগরের ভাস্কর্যও ম্লান হয়ে যাবে। বগলার আদর পেয়ে স্তনদুটো হাল্কা লালাভ আকার ধারণ করল, বগলা মুখ নামিয়ে দুটোতেই গভীর ভালোবাসায় দুটো চুমু একে দিল। স্তনবৃন্তে সরাসরি বগলার ঠোটের স্পর্শ পেয়ে রম্ভা শিউরে উঠল। রম্ভা বগলার মাথাটা ওর স্তনের উপরে চেপে ধরল। বগলা ডাসা ডাসা স্তনদুটোকে হাত দিয়ে আলতো চেপে ডান স্তনের নিপিলস সহ অর্ধেকটা মুখে পুরে নিয়ে চুষতে লাগল আর অন্যহাতে বাম স্তনটাকে চটকাতে লাগল। বগলা জিভ দিয়ে স্তন বৃন্তের আশেপাশে বুলিয়ে দিতে দিতে চুষতে লাগল।


রম্ভা এবার বগলার শার্টের বোতাম একটা একটা করে খুলে ফেলে ওর প্রশস্ত লোমশ বুকে মুখ গুজে দিল। রম্ভা হঠাৎ শাড়ির উপর দিয়ে তার উরুর কাছে শক্ত কিছুর ঘষা টের পেল, রম্ভা হাত বাড়িয়ে ধুতির উপর দিয়ে শক্ত জিনিসটা ধরল। বগলাও নিজের সবচেয়ে গোপন জায়গায় রম্ভার নরম হাতের স্পর্শ পেয়ে পুলকিত হল, বৌদির হাতের ছোঁয়ায় একটু কেমন কেমন লাগলেও রম্ভার হাত সরিয়ে দিতে পারল না, বরং আরো আদরের সাথে রম্ভার স্তন টিপতে লাগল। রম্ভাও দেবরের লিঙ্গতে হাত দিয়েছে ভেবে একটু লজ্জা লাগলেও এটায় হাত দিয়ে ধরে রাখতে তার ভালই লাগল। বগলার ধুতির সরিয়ে রম্ভা ওর আন্ডারওয়্যারের ভিতরে হাত ঢুকিয়ে চমকে উঠল বগলার লিঙ্গের বিশাল সাইজ অনুভব করে। রম্ভা আস্তে আস্তে বগলার লিঙ্গটা টিপতে লাগল। রম্ভা বগলার লিঙ্গটা দেখার জন্যে বগলার ধুতিটা খুলে দিল, বগলা হাত নামিয়ে আন্ডারওয়্যারটা খুলে ফেলল। চাদের আলোয় বগলার মুক্তি পাওয়া বিশাল লিঙ্গটা দেখে রম্ভার মনে হল যেন কোন শিল্পী পাথরে কুদে কুদে ওটা তৈরী করেছে। উত্তপ্ত লিঙ্গের মাথাটা হাতের মধ্যে নিয়ে ওপর নিচে কচলাতে লাগল, রম্ভার চটকানিতে লিঙ্গটা যেন ফেটে যাবে বলে মনে হল বগলার। বগলা রম্ভার শরীরটার দিকে তাকিয়ে ভাবল, কি নিখুঁত তার বৌদির শরীরটা, এরকমই নারীর শরীর সে আযৌবন কামনা করে এসেছে।
দুই স্তনে বগলার জিভের আদর খেতে খেতে রম্ভা লিঙ্গটা হাত দিয়ে ওঠানামা করাতে লাগল। ওদিকে নিম্নাঙ্গে রম্ভার আদর পেয়ে বগলা উত্তেজিত হয়ে উঠল, ওকে রম্ভার নিম্নাঙ্গের নিষিদ্ধ বাগান যেন চুম্বকের মত টানছিল। বগলা শাড়ি সায়ার ভেতরে হাত ঢুকিয়ে দিয়ে স্পর্শ করে তার বৌদির যোনীদেশের অগ্নিকুন্ড| বগলা রম্ভার নগ্ন উপরাংশে চুমু খেতে খেতে রম্ভার গভীর নাভীতে এসে স্থির হল, কোন মেয়ের নাভী যে এতো সুন্দর হতে পারে সে ধারনাই তার ছিল না। নাভিতে জিভের ছোঁয়া পেতেই রম্ভা শিউরে উঠল। রম্ভা পাছা উঠিয়ে বগলাকে তার শাড়ি সায়া নিচ থেকে গুটিয়ে কোমরের উপরে জড়ো করে রাখতে সাহায্য করল। রম্ভার পা দুটো দুদিকে ছড়িয়ে বগলা নিচে নেমে গেল। নিজের দেহের সবচেয়ে স্পর্শকাতর যায়গায় বগলার মুখের স্পর্শ পেয়ে রম্ভা সুখে আত্নহারা হয়ে গেল।
রম্ভার উন্মুক্ত যোনিতে বগলা নিজের মধ্যমা ঢুকিয়ে দিতেই রম্ভা শীৎকার দিয়ে উঠল। যোনিপথে আঙ্গুলি সঞ্চালন করাতে যোনির অভ্যন্তগাত্রে ঘর্ষণে এক অব্যক্ত শিহরণ রম্ভাকে পাগল করে তুলল। দেখতে দেখতে রম্ভার যোনির রসে বগলার আঙ্গুল ভিজে গেল। আঙ্গুলটা বের করে নিয়ে বগলা যোনিগহ্বরের পাশের পাঁপড়ি টেনে যোনিমুখ উন্মোচিত করে দিয়ে রম্ভার যোনির রস চাটতে আরম্ভ করলো।
ভগাঙ্কুরে জিভ পরতেই হিস হিস করে উঠলো রম্ভা, শ্বাস প্রশ্বাস ভারী হয়ে উঠলো, রম্ভা চোখ বন্ধ করে হাত বাড়িয়ে বগলার মাথা নিজের যোনিতে ঠেসে ধরল। কিছুক্ষন চোষনে রাগরস মোচন করে বাধভাঙ্গা আনন্দে রম্ভা পাগলপ্রায় হয়ে উঠল।
এরপরে বগলা খাটের উপরে পা ছড়িয়ে হেলান দিয়ে বসল, শাড়ি, সায়া খুলে পুরো উলঙ্গ হয়ে রম্ভা কোমরটা একটু ওপরে উঠিয়ে বগলার কোলের ওপরে উঠে বসল, ডান হাতে বগলার মোটা লিঙ্গটা ধরে আস্তে আস্তে নিজের যোনির চারপাশে ঘসতে লাগল। রম্ভা লিঙ্গের চামড়াটা নিচের দিকে টেনে ধরে লিঙ্গমুন্ডুকে উন্মুক্ত করে কোমরটাকে একটু নিচের দিকে নামালে বগলার লিঙ্গমুন্ডি রম্ভার রসাল যোনির ভেতর পচ করে ঢুকে গেল। বগলা রম্ভার কোমরটা খামছে ধরে নিচের দিকে চাপ দিলে সম্পুর্ন লিঙ্গটা চরচর করে রম্ভার রসাল যোনিতে ঢুকে গেল। রম্ভাও যোনিটাকে নিচে চেপে লিঙ্গের গোড়া অবধি ভেতরে ঢুকিয়ে নিল। এরপরে রম্ভা বগলার কোলের ওপরে বসে একটু ওপরে উঠে অর্ধেক লিঙ্গটাকে বের করে আবার বসে পরে পুরো লিঙ্গটা যোনির ভেতরে নিয়ে তীব্র সঙ্গমসুখে ভেসে যেতে লাগল। বগলার উত্থিত লিঙ্গের মূল অবধি রম্ভা দ্রুত ওঠা নামা করে ভেতরে নিতে লাগল, কিছুক্ষনের মধ্যেই বগলা ও রম্ভা পৌঁছে গেল সঙ্গমের শেষ সীমায়। রম্ভা বগলাকে গভীর আবেগে ঠোঁটে ঠোঁট মিশিয়ে চুমু খেতে তার শরীর কেপে কেপে উঠল। বগলার শরীর যেন তখন পুড়ে যাচ্ছে কামনার অনলে। ক্রমশ বগলার লিঙ্গটাকে কামড়ে ধরছে রম্ভার যোনি, হঠাত কোমরটাকে বেঁকিয়ে এক মুহূর্ত থেমে গেল রম্ভা, বগলা অনুভব করল তার বৌদির আবার রাগমোচনের। নিচ থেকে জোরে জোরে ঠেলে বগলা লিঙ্গটা রম্ভার যোনি গহব্বরে ঢুকিয়ে দিতে লাগল। বৌদির তপ্ত যোনি রসে স্নান করে বগলার লিঙ্গ আরো বেশি মোটা ও শক্ত হয়ে গেছে। বগলা ও রম্ভা দুজনেই নিজেদের যৌবন তরী বাইতে বাইতে জীবনের শ্রেষ্ঠতম সুখের বন্দরে গিয়ে ভেড়াল। বগলা এক সুদক্ষ মাঝির মতো নাও নিয়ে কামদরিয়ার অথই জলে নৌকা ছুটাতে লাগল। রম্ভা বগলার সমস্ত পুরুষালী উতপীড়ন শরীর পেতে গ্রহন করল। যৌন উত্তেজনা তীব্র থাকায় এহেন রতিক্রিয়া দীর্ঘ্যব্যাপী হয়না, হঠাত সজোরে এক ধাক্কায় রম্ভার যোনিগহব্বরে গল গল করে গরম বীর্য ঢেলে দিল শক্ত হয়ে ফুলে থাকা বগলার লিঙ্গ। দুহাত দিয়ে রম্ভার পিঠটাকে জড়িয়ে ধরল বগলা, রম্ভার চিবুকটা উঁচু করে তার বন্ধ চোখ দুটোতে আলতো করে চুমু দিয়ে রম্ভার ঠোঁটে ঠোঁট মিশিয়ে দিল বগলা, ঘন চুম্বনে আবদ্ধ হল তারা। এইভাবে শুরু হল বগলার সাথে তার বৌদির পরকিয়া প্রেম।
একটা সূক্ষ্ম অপরাধবোধ কাজ করে রম্ভার মধ্যে, তার মনে হয় এটা কি তার নিস্তরঙ্গ জীবনে ঝড়ের আভাস নাকি ভাদ্র মাসে সারমেয়সুলভ রিরংসা। সে জানে না জানতেও চায় না এটা মিলনের উত্তাপ না ভালোবাসা না কি দুইই।
স্বামীর অসময়ে চলে যাওয়ায় রম্ভার নিজেকে বড় অসহায় লাগে। সে শুধু জানে স্বামীর অবর্তমানে পুরুষের চোখে নারীর অবস্থান বিশেষ করে তার নারীলোভী দেবরটির হাত থেকে সে নিজেকে কতদিন বাঁচিয়ে রাখতে পারত। তার নিজেকে মনে হয় সে বাঘের খাঁচায় বন্দী। প্রথমে ভদ্রতার মুখোশ পরে সহানুভুতি, পরে অন্তরঙ্গ অনুসঙ্গ। আরও পরে খাদ্য ও খাদকের সম্পর্ক। প্রতিবাদে দুই মেয়ের হাত ধরে রাস্তায় গিয়ে দাঁড়ানো। তার একটা ছাতা দরকার। এখানে ছুতমার্গ গৌণ। প্রথম প্রয়োজন নিরাপত্তা পরে অর্থ।
রম্ভা বুদ্ধিমতি মেয়ে, সে জানে নীতি নৈতিকতা নিয়ে চললে তার চলবে না, তার ও তার মেয়েদের ভবিষ্যত তাকেই বুঝে নিতে হবে। অধিকার কেউ এমনি এমনি দেয় না, কেড়ে নিতে হয় বুঝে নিতে হয়। কিছুদিনের মধ্যেই রম্ভার ছলাকলায় তার অবিবাহিত দেবর পুরোপুরি বশীভূত হয়ে যায় এবং সংসারের পুরো কর্তিত্ব তার হাতে চলে আসে। বগলার সাথে রম্ভার একটা অলিখিত চুক্তি হয়ে যায় যে বাড়ির বাইরে বগলা কি করে বেড়াচ্ছে সেটা নিয়ে সে মাথা ঘামাবে না কিন্তু বাড়ির মধ্যে তার কথাই শেষ কথা।

বেশ কয়েক মাস পরে

(একদিন বগলা ও হরি সান্ধ্য পানাহারে বসেছে)
বগলা- হরি, ভীষন অসুবিধায় পরে গেছি এক মাসের জন্য এক লাখ টাকা ধার দিবি। মাস খানেক পরে আমার বড় একটা পেমেন্ট ঢুকবে তখন তোর টাকাটা দিয়ে দেব। তুই সুদ চাইলে সুদও দেব।
হরি- সুদের প্রশ্ন আসছে কোথা থেকে, তুই ঠিক সময়ে আসলটা ফেরত দিলেই হবে। তোর কবে চাই টাকাটা?
বগলা- কালকের মধ্যে পেলে ভাল হয়।
হরি- ঠিক আছে আমি কাল সকালে ব্যান্ক থেকে টাকা তুলে তোর বাড়িতে যাব আর তোর বৌদিকে বলিস আমি কাল দুপুরে তোর ওখানেই খাব। সত্যি বলছি তোর বৌদির মত এত ভাল রান্নার হাত আর কারো দেখিনি।
বগলা- (বৌদির উপর যে শালা তোর অনেকদিনের লোভ সেটা আমার জানতে বাকি নাই) কি রে শালা সুদ নিবি না বললি যে খেয়েই তো সুদের ডবল তুলে নিবি। হা, হা।
হরি- (তোর বৌদির গুদ পেলে সুদ কেন আসল পর্যন্ত ছেড়ে দিতে পারি) ঠিক আছে তোকে খাওয়াতে হবে না আমি টাকা এমনি পৌঁছে দেব।
বগলা- শালা নক্সা দেখাস না। কালকে বৌদিকে পাঠার মাংস রান্না করতে বলব, ঠিক সময়ে চলে আসবি।

বগলার বিয়ে

ছোটবেলা থেকেই বগলার যাত্রা দেখার খুব নেশা, এই শখের জন্য সে দূর দূর পর্যন্ত যাত্রা দেখতে চলে যেত। বগলার দাদার মৃত্যুর প্রায় দু বছর পরে হঠাত ডাকযোগে একটা খাম আসে, খামের মধ্যে নিমন্ত্রণ পত্র ও একটি যাত্রার টিকিট ছিল। খামটি পেয়ে বগলা ভিষন অবাক হয়ে ভাবে যে তার যাত্রা দেখার নেশার খবর এতদূর পর্যন্ত ছড়িয়ে গেছে যে অত্দুরের গ্রামের একটা ক্লাব থেকে তাকে নিমন্ত্রন পত্র সহ যাত্রার টিকিট পাঠাচ্ছে। বগলার মনে হয় এটা হয়ত একটা চাঁদা চাওয়ার কৌশল। বগলা প্রথমে যাবে না বলেই ঠিক করে কিন্তু তার যাত্রার প্রতি দুর্নিবার আকর্ষণ তাকে যাত্রা দেখতে যেতে বাধ্য করে।
তখনকার দিনে যাত্রা যেখানে হত তার পাশে ছোটখাট একটা মেলাও বসে যেত। মেলায় ঘুরবে বলে বগলা যাত্রাপালা শুরুর বেশ কিছু আগে ওখানে পৌঁছে গেল। মেলায় ঘুরতে গিয়ে এক অসামান্য সুন্দরীকে দেখে বগলার চোখ আটকে গেল, এত সুন্দরী কোন মেয়ে বগলা আগে কখনো দেখেনি। অবাক চোখে সুন্দরীর দিকে তাকিয়ে থাকতে গিয়ে হঠাত বগলার সুন্দরীর সাথে চোখাচোখি হয়ে যায়। চোখাচোখি হতেই সুন্দরী একটা সুন্দর হাসি দিয়ে একটা চুড়ির দোকানে ঢুকে যায়। অচেনা জায়গায় সুন্দরীর সাথে আলাপ করবে কি করবে না ভেবে বগলা ইতস্তত করতে থাকে, কিন্তু সুন্দরীর মিষ্টি হাসি জয়লাভ করে, বগলা এগিয়ে যায় চুড়ির দোকানের দিকে। সুন্দরীর পাশে গিয়ে বগলা দাঁড়ায়, সুন্দরী বগলাকে না দেখার ভান করে চুড়ি দেখতে থাকে। বগলাও মিথ্যে চুড়ি বাছার অভিনয় শুরু করে, বেশ কিছুক্ষন অভিনয় করার পরে বগলা চুড়ি নিয়ে তার জ্ঞান সীমিত জানিয়ে সুন্দরীকে তার হয়ে তার ভাইঝিদের জন্য কিছু চুড়ি বেছে দিতে অনুরোধ করে। চুড়ি বাছাবাছি করতে গিয়ে দুজনের হাত হাত ঠেকে যায় আর তার ফলে দুজনের মধ্যে মিষ্টি হাসির বিনিময় হয়। সুন্দরী কিছু চুড়ি বেছে বগলার হাতে দেয়, বগলা তখন সুন্দরীকে তার পছন্দের কিছু চুড়ি তাকে বেছে দিতে অনুরোধ করে। সুন্দরী অবাক হলেও কিছু চুড়ি বেছে দেয়। বগলা সমস্ত চুড়ির দাম মিটিয়ে দোকান থেকে বেরিয়ে আসে, একটু পরে সুন্দরীও দোকান থেকে বেরিয়ে আসে। বগলা সুন্দরীর কাছে গিয়ে চুড়ি বেছে দেবার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ জানিয়ে তার সাথে চা খাবার জন্য অনুরোধ করে। সুন্দরী একটু ইতস্তত করে রাজি হয়ে যায়, চা খেতে খেতে দুজনে একে অপরকে নিজেদের পরিচয় দেয়। সুন্দরী জানায় তার নাম সুনীতি, সে এই গ্রামেই থাকে, সে বাড়ির সবার সাথে যাত্রা দেখতে এসেছে, সে মেলায় ঘুরবে বলে বাইরে আছে বাকিরা সবাই যাত্রার ওখানে ঢুকে গেছে, তার যাত্রা দেখতে একদম ভাল লাগে না, সে অবশ্য বাড়ির লোকেদের বলে রেখেছে তার ইচ্ছে না করলে আর বাড়ি ফেরার সঙ্গী পেয়ে গেলে সে বাড়িও ফিরে যেতে পারে। বগলা তার নিজের পরিচয় দেবার পরে বলে যে এমন অসামান্য সুন্দরীর সঙ্গে আলাপ হয়ে তার অত দূর থেকে আসাটা সার্থক হয়েছে। এই শুনে সুনীতি মনে মনে খুশি হয় আর লজ্জায় মুখ লাল হয়। আজকের তাদের আলাপ হওয়ার স্মৃতি হিসাবে সুন্দরীর পছন্দের চুড়িগুলো বগলা তাকে উপহার হিসাবে দিতে চায়, সুন্দরী এই উপহার নিতে অস্বীকার করে কিন্তু তার অস্বীকারের ভাষা ও ভঙ্গি জোরালো না হওয়ায় বগলা উপহার নেবার জন্য পিরাপিরি করতে থাকে। অনেক অনুরোধ উপরোধের পরে সুনীতি উপহার নিতে স্বীকৃত হয়। ভাইঝিদের জন্য কেনা চুড়িগুলো রেখে দিয়ে বগলা সুনীতির নিজের পছন্দের চুড়িগুলো সুনিতিকে দেয়। সুনীতি চুড়িগুলো নিয়ে বলে যে তার আর যাত্রা দেখার ইচ্ছে নেই, সে বাড়ি ফিরে যেতে চায় কিন্তু তার একা ফিরতে ভয় করছে তাই কেউ যদি তাকে বাড়ি পর্যন্ত পৌঁছে দিত তো খুব ভাল হতো। এই কথা শুনে বগলার মনে হয় সে আজ কার মুখ দেখে উঠেছিল যে মেঘ না চাইতেই জল। সুনীতির এই ইঙ্গিত বোঝার ক্ষমতা বগলার মত লম্পটের ভালই আছে। সুনিতিকে শুধু বাড়ি পর্যন্ত না আরো অনেকদুর পর্যন্ত পৌঁছে দেবার জন্য বগলা সুনিতিকে বাড়ি পর্যন্ত পৌঁছে দেবার প্রস্তাব দেয়। বগলার রাজি হওয়ায় সুনীতি অসংখ ধন্যবাদ জানিয়ে বগলাকে নিয়ে বাড়ির দিকে রওয়ানা দেয়।


সুন্দরী মেয়ের নেশার কাছে যাত্রা দেখার নেশা হেরে যায়। বেশ কিছুক্ষন পরে তারা সুনীতির বাড়ির কাছে পৌঁছলে সুনীতি বলে যে বাড়ির দোরগোড়ায় এসে অতিথি শুধু মুখে ফিরে গেলে গৃহস্থের অকল্যান হয় তাই বগলা বাড়ির ভেতরে এসে একগ্লাস শরবত খেয়ে তারপরে যেন যায়। শুধু শরবত কেন আরো অনেক কিছু খাবার ইচ্ছে নিয়েই বগলার এত দূর আসা তাই বগলা এক কথায় রাজি হয়ে যায়। সুনীতি তখন বগলাকে একটা অসুবিধার কথা বলে যে কোন পুরুষ মানুষকে নিয়ে তার মত একাকী মেয়ের বাড়ির সদর দরজা দিয়ে প্রবেশ করাটা ঠিক শোভন নয়, তাই সে প্রথমে একা বাড়ির ভেতরে গিয়ে বাড়ির পেছনের খিড়কির দরজা খুলে দিচ্ছে এবং সেখান দিয়ে বগলা যেন বাড়ির ভেতরে প্রবেশ করে। বগলার তখন এমন অবস্থা যে তাকে বাড়ির ছাদের দরজা দিয়ে প্রবেশ করতে বললে সে পাইপ বেয়ে উঠে ছাদের দরজা দিয়ে প্রবেশ করবে। দুজন দুদিকে এগিয়ে যায় সুনীতি যায় বাড়ির সদর দরজার দিকে আর বগলা যায় বাড়ির পেছনের খিড়কির দরজার দিকে। সুনীতি সদর দরজার চাবি খুলে ভেতরে ঢুকে আবার চাবি লাগিয়ে দিয়ে খিড়কির দরজার দিকে এগিয়ে যায়, খিড়কির দরজা খুলে দিয়ে বগলাকে বাড়ির ভেতরে ঢুকিয়ে নেয়।
এরপরে সুনীতি বগলার একটা হাত ধরে অন্ধকারের মধ্যে পথ দেখিয়ে একটা ঘরের মধ্যে নিয়ে এসে খাটের উপরে বসতে বলে চলে যেতে যায়। বগলা সুনীতির হাতটা ধরে জিজ্ঞেস করে যে তাকে অন্ধকারে বসিয়ে রেখে সুনীতি কোথায় যাচ্ছে। সুনীতি বগলার মুখটা দু হাত দিয়ে ধরে বলে, এখানে চুপটি করে বসুন, আমি শরবতটা বানিয়ে নিয়ে এক্ষুনি আসছি। এইবলে সুনীতি ঘর থেকে বেরিয়ে যায় এবং কিছুক্ষন পরে গ্লাসে শরবত নিয়ে ফিরে আসে। সুনীতি শরবতের গ্লাসটা নিয়ে বগলার সামনে গিয়ে দাঁড়ায়, বগলা দু হাতে সুনীতির কোমর জড়িয়ে ধরে সুনিতিকে চুমু খাবার চেষ্টা করে। সুনীতি বগলার কপালে একটা চুমু খেয়ে বলে, এই দুষ্টু, আগে আমার হাতের শরবত খেয়ে বলুন আমি কেমন শরবত বানিয়েছি তারপরে দুষ্টুমি করবেন। এইবলে সুনীতি বগলার মুখে শরবতের গ্লাসটা ধরল, বগলা এক চুমুকে পুরো গ্লাসের শরবত শেষ করে দিল। সুনীতি শাড়ির আঁচল দিয়ে সুন্দর করে বগলার মুখ মুছিয়ে দিয়ে বগলার কপালে একটা চুমু দিয়ে বলল, আপনি লক্ষীছেলের মত চুপটি করে খাটের উপরে শুয়ে থাকুন, আমি গায়ে জল ঢেলে জামা কাপড় চেঞ্জ করে আসছি। বগলা দুহাত দিয়ে সুনীতিকে জড়িয়ে ধরে বুকের সাথে লেপ্টে নিয়ে বলল, জামা কাপড় ছাড়তে বাইরে যেতে হবে কেন আমি তোমার জামা কাপড় সব ছাড়িয়ে দিচ্ছি। এইবলে বগলা সুনীতির আঁচলটা বুকের উপর থেকে নামিয়ে দিয়ে ব্লাউজের উপর দিয়ে সুনীতির ভরাট সুডৌল স্তনদুটো মুঠো করে ধরল। সুনীতি ছটপটিয়ে উঠে… 

This Post Has 4 Comments

Leave a Reply