অ-সুখ [পার্ট ২] বউ বদল

পর্ব ৬
সদ্য কামানো মসৃণ যোনিটাকে হাতের মুঠোয় ধরে কচলায় সৌভিক… আঙুলটায় মাখামাখি হয়ে যায় চুঁইয়ে বেরিয়ে আসা আঠালো রসে… ‘আহহ… তাই তো… আমার সোনাটারও তো দেখছি একেবারে অবস্থা খারাপ… দেখো… বলেছিলাম না… ভিষন ভালো লাগবে… এই সব কথাতেই এই অবস্থা… তাহলে অন্য কেউ যখন করবে তখন কি হবে তোমার এইটার?’ বলতে বলতে হাতের মধ্যমাটাকে ঢুকিয়ে দেয় যোনির ফাটলের ফাঁক গলিয়ে… ‘ইশশশশ…’ শিঁটিয়ে ওঠে আরামে সুদেষ্ণা… খামচে ধরে হাতের মুঠোয় ধরা লিঙ্গটাকে সবলে… জোরে জোরে ওঠানামা করায় হাতটাকে ফুলে শক্ত হয়ে থাকা লিঙ্গটাকে মুঠোয় রেখে…

সুদেষ্ণাকে চিৎ করে শুইয়ে দেয় সৌভিক… নিমেষের মধ্যে পরনের সমস্ত কাপড়ের স্থান হয় বিছানা থেকে মাটিতে… দুটো নগ্ন শরীর অদম্য কামকেলীতে মেতে ওঠে…

সুদেষ্ণার তপ্ত রসে ভরা যোনির মধ্যে লিঙ্গের সঞ্চালন করতে করতে সৌভিক ফিসফিসিয়ে বলে ওঠে… ‘ভাবো তো… এখন তুমি পা ফাঁক করে চোদাচ্ছ একটা অন্য মানুষকে দিয়ে… দেখো কি আরাম হয়…’

শুনেই যেন কেমন সিরসির করে ওঠে পুরো শরীরটা সুদেষ্ণার… ‘যাহঃ… যত রাজ্যের অসভ্য কথা… আমার বয়েই গেছে এই সব ভাবতেই…’ পা দুটোকে তুলে সৌভিকের কোমরটাকে কাঁচি মেরে ধরতে ধরতে বলে সুদেষ্ণা…

‘আহা… ভাবতে দোষ কিসের… ভাবোই না…’ থেমে থেমে কোমরের দোলায় ধাক্কা দেয় সুদেষ্ণার যোনির মধ্যে…

‘নাহঃ… ও সব ভাবতে ভালো লাগে না আমার…’ স্বামীর চোখে চোখ রেখে উত্তর দেয় সুদেষ্ণা… আরামে সারা শরীরটা যেন অবস হয়ে থাকে তার…

‘একবার অন্তত আমার জন্য ভাবার চেষ্টা করো… প্লিজ…’ এই ভাবে নিজের স্ত্রীকে অনুরোধ করতে গিয়ে আরো যেন নিজেই উত্তেজিত হয়ে ওঠে সৌভিক… পুরুষাঙ্গটাকে চেপে ঢুকিয়ে রেখে শরীরটাকে ওঠা নামা করে রগড়ায় যোনির সাথে… আর এর ফলে নিজের যোনির মুখের ভগাঙ্কুরের সাথে সৌভিকের পুরুষাঙ্গের গোড়ার ঘন লোমের ঘসা লেগে এক স্বর্গীয় সুখ পায় সুদেষ্ণা… আরামে চোখ বন্ধ হয়ে আসে তার…

ফিসফিসিয়ে জিজ্ঞাসা করে সৌভিক… ‘ভাবছো?’

চোখ খোলে সুদেষ্ণা… সেই মুহুর্তে তার চোখে মিলনের ঘনঘটা… মাথা নাড়ে সে… ‘না… কাউকে সেই ভাবে মনে আসছে না যে…’

‘চেষ্টা করো… কারুর না কারুর কথা ঠিক মনে আসবে…’ ফের ফিসফিসিয়ে পরামর্শ দেবার চেষ্টা করে সৌভিক… লিঙ্গটাকে বাইরে টেনে এনে জোরে জোরে ঠেলে দেয় যোনির মধ্যে এবার… মুখ নামিয়ে শক্ত হয়ে থাকা একটা স্তনবৃন্ত তুলে নেয়… চুষতে থাকে সেটাকে মুখের মধ্যে নিয়ে…

‘উমমমম… উফফফফফ… চোষোহহহহহ… ইশশশশশশশ…’ কোঁকিয়ে ওঠে সুদেষ্ণা আরামে… চোখ বন্ধ করতেই কি করে যেন চোখের সামনে একটা মুখ ভেসে ওঠে তার সত্যি সত্যিই… অনেকদিন পর… একেবারে স্পষ্ট… আর সেটা কারুর নয়, সৌভিকেরই এক কাকার… সৌভিকের ছোট কাকার…

মুখটা বন্ধ চোখের আড়ালে ভেসে উঠতেই একটা প্রচন্ড তাপপ্রবাহ বয়ে যায় সুদেষ্ণার শরীরের মধ্যে দিয়ে… তার মনে হয় যেন যোনির মধ্যে ৪৪০ ভোল্টের একটা খোলা তার কেউ গুঁজে দিয়েছে… শরীরের ওপরে থাকা সৌভিকের নগ্ন দেহটাকে খামচে ধরে সে প্রাণপনে… ওহহহহহহহহ… গুঙিয়ে ওঠে শক্ত চোয়ালের আড়ালে…

কৌশিক… সৌভিকের কাকা… বিয়ের পরে সৌভিকদের বাড়ি যাবার পরই দেখা ওনার সাথে… দিল খোলা হাসি খুশি মানুষটা… বিয়ে’থা করেন নি… খুব ঘুরতে ভালোবাসেন… দেশে বিদেশে ঘুরেই ওনার দিন কাটে… খুব কম দিনই নিজের বাড়িতে সময় দেন… আর যখন থাকেন, তখন হাসি মজায় মজিয়ে রাখেন সবাইকে… রীতিমত জিম করা সুস্বাস্থের অধিকারী ভদ্রলোক… থাকেনও সর্বদা ফিটফাট… লম্বা, বলিষ্ঠ ঋজু দেহ… এক মাথা কাঁচাপাকা চুল… টিকালো নাক, পাতলা ঠোঁট… আর সব থেকে আকর্ষণীয় ওনার চোখদুটো… অসম্ভব গভীর সে চোখের দৃষ্টি… তাকালে মনে হয় যেন মনের একেবারে ভেতর অবধি সব কিছু উনি দেখতে পাচ্ছেন… ওনার চোখের দিকে বেশিক্ষন তাকিয়ে থাকা যায় না যেন…

প্রথম দর্শনেই কেমন একটা অদ্ভুত প্রচ্ছন্ন আকর্ষণ অনুভব করেছিল সুদেষ্ণা… এই নিয়ে সৌভিকের সাথে হাসাহাসিও করেছে নিভৃত্বে… কতদিন হয়েছে এই কাকাকে নিয়ে পেছনে লেগেছে সৌভিক… বিছানায় মিলনের সময় টিজ করেছে তাকে কাকার কথা মনে করিয়ে দিয়ে… সেও বরাবরই ঠাট্টার ছলেই নিয়েছে ব্যাপারটাকে… পালটা সেও বলতে ছাড়ে নি কাকার সাথে প্রেম করার বিশয়ে… সবই ঠিক ছিল, কিন্তু একটা দিনের ঘটনায় বাধ সাধলো ওই হাল্কা ঠাট্টাতামাশা গুলো…

সেদিন খুব বৃষ্টি হচ্ছিল… বাইরের ঘরে সুদেষ্ণা, শ্বশুর শাশুড়ি আর সৌভিক বসে গল্প করছিল… হটাৎ সৌভিকের ওই কাকা প্রায় দৌড়াতে দৌড়াতে ঢোকেন ঘরের মধ্যে… বৃষ্টির ছাঁটে একেবারে ভিজে চুপচুপে হয়ে… তা দেখে শাশুড়ি তাকে তাড়াতাড়ি পোষাক ছেড়ে নিতে বলেন… কাকা মাথা নেড়ে চলে যান নিজের ঘরে… বাকিরা আবার ফিরে যায় নিজেদের আড্ডায়…

সবাই ফিরে গেলেও, মনটা কেমন খচখচ করতে থাকে সুদেষ্ণার… অবিবাহিত একা মানুষটা… এই ভাবে ভিজে ফিরলো… কেন জানে না সে… ইচ্ছা করছিল এগিয়ে গিয়ে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়… কিন্তু নতুন বৌ সে… হুট করে উপযাযক হয়ে উঠে যাওয়াটাও দৃষ্টিকটূ… একটু উশখুশ করে শাশুড়িকে বলে ওঠে… ‘মা… আমি গিয়ে ছোটকাকাকে একটু দেখবো… মানে এই ভাবে ভিজে ফিরলেন উনি… যদি কোন সাহায্য লাগে…’

তার কথায় সৌভিক তো প্রথমেই উড়িয়ে দেয়… ‘আরে দূর দূর… কাকার এটা কি নতুন নাকি… ও কতবার এই ভাবে ভিজে ফিরেছে… ও নিজেই ঠিক সামলে নেবে… আর তাছাড়া… কাকা কেউ সাহায্য করুক, সেটা কোনদিনই চায় না… কাউকে কিছু করতেই দেয় না…’

শাশুড়ি কিন্তু কথাটা সৌভিকের মত উড়িয়ে দেন নি… হয়তো নতুন বৌয়ের মনটা ভালো বুঝেই বলে ওঠে, ‘তুই এই ভাবে বৌমাকে বারণ করছিস কেন রে? সত্যিই তো… কৌশিক এই ভাবে ভিজে ফিরেছে, কিছু প্রয়োজন হলেও তো হতে পারে…’ তারপর নতুন বৌএর দিকে ফিরে বলে উঠেছিলেন… ‘হ্যা বৌমা, যাও একবার বরং… দেখো, যদি কিছু লাগে…’

সাথে সাথে উঠে পড়েছিল সুদেষ্ণা… দ্রুত পায়ে এগিয়ে গিয়েছিল দোতলার ওই ঘরটার দিকে… যেতে যেতে কেন জানে না সে, বুকের মধ্যেটায় কেমন ঢিপঢিপ করে উঠেছিল… আঁচলটাকে টেনে গাছকোমরের মত করে ভালো করে পেঁচিয়ে গুঁজে দিয়েছিল শাড়ির ভেতরে…

হাল্কা পায়ে ঘরের সামনে এসে দাড়িয়েছিল সে… ভেজানো দরজার এপার থেকে মৃদু কন্ঠে প্রশ্ন করেছিল, ‘কাকা… আসবো?’

ভদ্রলোকের গলার স্বর এমনিতেই ভারী, ভরাট… ভেতর থেকে পালটা প্রশ্ন আসে… ‘কে? বৌমা? কেন?’

গলার স্বর কানে যেতে যেন শরীরের মধ্যেটায় একটা শিহরণ বয়ে যায় সুদেষ্ণার… ক্ষনিকের জন্য দমটা বন্ধ হয়ে যায় তার… অতি কষ্টে স্বাভাবিক থাকার চেষ্টা করে নিচু গলায় উত্তর দেয় সে… ‘না, মানে মা বললেন যদি আপনার কোন সাহায্য লাগে…’

‘বৌদি বলেছে?’ একটু যেন বিশ্ময় মিশে থাকে গলার স্বরে… তারপর খানিক চুপ থেকে ফের উত্তর আসে ভেতর থেকে… ‘বেশ… ভেতরে এসো…’

এবাড়িতে মাথায় ঘোমটা দেবার রীতি নেই, তাই ওই ভাবেই টানটান করে গুঁজে রাখা আঁচলেই ঘরের ভেজানো দরজায় ঠেলা দিয়ে খুলে ঘরে ঢোকে সুদেষ্ণা…

শুধু মাত্র পায়ের জুতো মোজাটাই খুলতে পেরেছেন ভদ্রলোক… তখনও সেই ভিজে প্যান্ট জামাতেই দাড়িয়ে রয়েছেন ঘরের মধ্যে… হাতে ধরা তোয়ালেটা… হয়তো এবার পোষাক খুলতেই উনি…

দ্রুত পায়ে এগিয়ে যায় সুদেষ্ণা… কাকার হাত থেকে তোয়ালেটা নিয়ে রাখে বিছানায়… ক্ষিপ্র হাতে খুলে দিতে থাকে ভেজা জামার বোতামগুলো… হয়তো সুদেষ্ণার এই ভাবে এগিয়ে আসায় খুশিই হয়েছিলেন সারা জীবন একা কাটানো মানুষটা… তাই বোধহয় সুদেষ্ণার কাজে বাধা দেননি তিনি… চুপ করে দাড়িয়ে থাকেন…

ভেজা জামাটা শরীর থেকে খুলে দিয়ে হাত গলিয়ে গায়ের গেঞ্জিটাও খুলে দেয় সুদেষ্ণা… তার সামনে তখন সবল মাঝবয়সী পুরুষের পেশল দেহ… দেহের প্রতিটা পেশি যেন সুস্পষ্ট… কেউ যেন পাথর খোদাই করে বানিয়েছে শরীরটাকে… খাটের থেকে তোয়ালেটা তুলে কাকার হাতে দিয়ে বলে সে… ‘প্যান্টটা ছেড়ে ফেলুন আগে…’ বলে পেছন ফিরে দাঁড়ায় সে… খসখস আওয়াজে বোঝে ভেজা প্যান্ট খোলার প্রচেষ্টার…

আওয়াজটা থামলে ঘুরে দাড়ায়… তারপর ঘরের আনলার কাছে গিয়ে একটা শুকনো পায়জামা তুলে নিয়ে এসে বাড়িয়ে দেয় কাকার উদ্দেশ্যে … ‘এটা চট করে পড়ে নিন…’

বাধ্য ছেলের মত তোয়ালেটাকে আড়ালে রেখে পড়ে নেন বাড়িয়ে দেওয়া পায়জামাটা… তারপর ছেড়ে ফেলা তোয়ালেটা দিয়ে মুছতে শুরু করেন নিজের গা’টা… কিন্তু সুদেষ্ণা তাড়াতাড়ি তোয়ালেটা ওনার হাত থেকে নিয়ে নেয়… ‘আপনি খাটে বসুন… আমি মুছিয়ে দিচ্ছি…’

একবারও আপত্তি করেন না ভদ্রলোক… চুপচাপ সুদেষ্ণার হাতে তোয়ালেটা তুলে দিয়ে খাটে বসেন… বিনাবাক্য ব্যয়ে শরীর থেকে জলগুলো মুছে দিতে থাকে সুদেষ্ণা… পরম মমতায়… গা মোছানো হলে সোজা হয়ে দাঁড়ায় সে… এগিয়ে যায় ভেজা মাথার চুলগুলো মুছিয়ে দিতে… তার উচ্চতার সাথে তাল মিলিয়ে বসে থাকা কাকার মাথাটা সমান্তরাল থাকে সুদেষ্ণার বুকের সাথে… মাথার ওপরে তোয়ালেটা রেখে যত্ন করে মোছাতে থাকে সে… চুলের মধ্যে আঙুল চালায় তোয়ালের মধ্যে দিয়ে…

সৌভিকের কাকার মাথাটা একটু একটু করে ঝুঁকে আসতে থাকে সামনের পানে মাথার চুলের মধ্যে তোয়ালের সঞ্চালনের ফলে… তারপর একটা সময় মাথাটা ঠেকে যায় সুদেষ্ণার নরম বুকের সাথে… সচকিত হয়ে ওঠেন ভদ্রলোক… পিছিয়ে নিতে যান মাথাটা নিজের পেছন পানে… ‘সরি…’ অস্ফুট স্বরে ক্ষমা চান সুদেষ্ণার কাছে তার এই প্রকার কাজের জন্য…

‘ঠিক আছে কাকা… কোন অসুবিধা নেই… আপনি রাখুন…’ ফিসফিসিয়ে উত্তর দেয় সুদেষ্ণা… মাথাটা ধরে নিজেই টেনে নেয় বুকের দিকে… আলতো করে চেপে ধরে মাথাটাকে নিজের বুকের ওপরে… মাথার পেছনদিকের চুলগুলো মোছাতে মোছাতে…

কাকার স্পর্শ পেতেই বুকের মধ্যেটায় যেন হাজারাটা দামামা বেজে ওঠে তার… হৃদপিন্ডটা যেন অস্বাভাবিক দ্রুততায় ধকধক করতে থাকে… স্লথ হয়ে আসে হাতের চাপ…

শরীরের ওপরে পরে থাকা শাড়ি, ব্লাউজ, ব্রাএর পরত পেরিয়ে ত্বকে একটা তপ্ত অনুভূতির স্পর্শ লাগে সুদেষ্ণার… সৌভিকের ছোটকাকার কপালটার লেগে থাকা জায়গাটা থেকে যেন আগুনের হল্কা তার বুকের নরম স্তনদুটোর পুড়িয়ে দিচ্ছে মনে হলো… আর সেই সাথে কাকার নাক থেকে বেরিয়ে আসা উষ্ণ নিঃশ্বাসের ছোঁয়া শাড়ি পাতলা আবরণ পেরিয়ে ঝরে পড়ে নির্মেদ উন্মক্ত পেটের ওপরে… ‘উমমমম…’ একটা চাপা শিৎকার কানে আসে সুদেষ্ণার… হাতের থেকে খসে পড়ে তোয়ালেটা… আধভেজা ঘন চুলের মধ্যে আঙুল চালায় সে… আরো নিবিড় করে টেনে নেয় মাথাটাকে নিজের বুকের মধ্যে… স্পর্শ পায় দুটো বলিষ্ঠ হাতের তার নিতম্বের ওপরে… নিজের জঙ্ঘাটাকে এগিয়ে ধরে কাকার পানে…

‘যদি একবার দেখতে চাই… পারি কি?’ ফিসফিসিয়ে প্রশ্ন করে সৌভিকের কাকা…

‘কিহহহহ…?’ চাপা গলায় ফিরিয়ে জিজ্ঞাসা করে সুদেষ্ণা…

‘তোমার বুকদুটো… বড্ড সুন্দর…’ সেই একই ভাবে নীচু গাঢ় গলায় উত্তর দেন ভদ্রলোক…

একবার চকিতে খোলা দরজার দিকে তাকায় সুদেষ্ণা… কাকার ঘরটা একেবারে শেষ প্রান্তে… আর সচারাচর হটাৎ করে এই দিকে কেউ একটা বড় আসে না… ভেবে খানিকটা আস্বস্থ হয় সে… তারপর সোজা হয়ে এক পা পিছিয়ে দাঁড়ায় ওনার সামনে… কাঁধের ওপরে হাত রেখে আঁচলটাকে ধরে নামিয়ে দেয় বুকের ওপর থেকে নির্দিধায়… কাকার চোখের সামনে মেলে ধরে ব্লাউজের আবরণে ঢাকা উদ্ধত দুটো পুরুষ্টু স্তনদ্বয়…

মোহিত চোখে খানিক তাকিয়ে থাকেন সে দিকে ভদ্রলোক… তারপর সেই আগের মত ফিসফিসিয়ে বলে ওঠেন… ‘আর…’

ঘোর লাগে সুদেষ্ণার চোখের মণিতে… সারা শরীরটার থেকে একটা আগুনের হল্কা বিচ্ছুরিত হতে থাকে যেন… শুকিয়ে ওঠে গলার মধ্যেটায়… কাঁপা গলায় বলে সে… ‘ওটা আপনি নিজে খুলে নিন…’

‘উমমমমম…’ সুদেষ্ণার কথায় গুঙিয়ে ওঠে ভদ্রলোক… আস্তে আস্তে হাতদুটো তুলে বাড়ান ব্লাউজের সামনে থাকা হুকগুলো লক্ষ্য করে… কাঁপা হাতে হুকগুলো একটা একটা করে খুলে ফেলতে থাকেন… সুদেষ্ণা চোখ বন্ধ করে চুপ করে দাড়িয়ে থাকে ভদ্রলোকের হাতের সামনে এক ভাবে… শুধু অনুভব করে এক সময় ব্লাউজের সামনেটার বাঁধন আলগা হয়ে যাবার… বোঝে এখন তার ওই নরম সম্পদদুটো শুধু মাত্র ব্রায়ের আড়ালে ঢাকা রয়েছে… বন্ধ চোখেই হাত তুলে গায়ের থেকে হুক খোলা ব্লাউজটা খুলে দেয় সে… শুধু মাত্র একটা সাদা ব্রা পরিহিত অবস্থায় ঘুরে দাঁড়ায় পেছন ফিরে ভদ্রলোকের কাছে… নিটল পীঠটায় ব্রায়ের সাদা স্ট্র্যাপদুটো কাঁধ থেকে নেমে এসে থেমে গিয়েছে মাঝবরাবর… চওড়া ফিতের সাথে মিলে গিয়েছে… মসৃণ উজ্জল বাদামী পীঠের ওপরে সাদা ব্রায়ের রঙটা যেন এক মায়াবী পরিবেশ সৃষ্টি করেছে… আলগা হয়ে যায় ব্রায়ের হুক… এক জোড়া তপ্ত ঠোঁটের ছোঁয়া পড়ে সুঠাম পীঠের ওপরে… ‘আহহহহ…’ চাপা শিৎকার বেরিয়ে আসে সুদেষ্ণার ঠোঁটের ফাঁক গলে…

‘সামনে ঘোরো…’ চাপা স্বরে ভারী গলায় আদেশ আসে পেছন থেকে…

যন্ত্রচালিতের মত ঘুরে দাঁড়ায় সুদেষ্ণা… সৌভিকের কাকার মুখের ঠিক সামনে মেলে থাকে তার সযন্তে লালিত স্তনযুগল আলগা হয়ে থাকা ব্রায়ের মধ্যে… কাঁধের ওপরে হাত রেখে নামিয়ে দেয় স্ট্র্যাপদুটোকে কাঁধ থেকে তার… খসে পড়ে যায় ব্রাটা শরীর থেকে… স্থান হয় সেটার পায়ের সামনে, মাটিতে… এখন আর কোন আবরণই থাকে না… সম্পূর্ণ নগ্ন বক্ষে কাকার চোখের সন্মুখে মেলে ধরে থাকে নিটোল তম্বী স্তনদুটোকে… অপার কামনায় তখন শক্ত হয়ে উঁচিয়ে রয়েছে দুটো গাঢ় বাদামী বৃন্ত বলয়ের মধ্যে থেকে…

দুটো হাতের মুঠোর মধ্যে নিয়ে আলতো করে চাপ দেন ভদ্রলোক স্তনদুটোয়… তারপর চাপ বাড়ে মুঠোর… ‘উমমম…’ শিৎকার করে চাপা গলায় সুদেষ্ণা… হাতের আঙুলের ফাঁকে থাকা চুলের গোছাটা চেপে ধরে… টান দেয় মাথাটাকে নিজের বুকের দিকে… নরম স্তনের ওপরে সবলে চেপে ধরে পুরো মাথাটাকে সে… সৌভিকের কাকা গুঁজে যাওয়া মাথাটাকে ঘসতে থাকে ডাইনে বাঁয়ে করে… কপালে, গালে, চোখের ওপরে মেখে নিতে থাকে নরম স্তনের মসৃণ ত্বকের পরশ… শক্ত স্ফিত হয়ে থাকা বড় বড় বোঁটাগুলো রগড়ে যায় মুখের চামড়ায়…

স্তন ছেড়ে হাতদুটোকে বাড়িয়ে দিয়ে দেহের টাল রাখে নরম উদ্যত নিতম্বের ওপরে রেখে… হাতের মুঠোয় নিয়ে নিতম্বের মাংসল দাবনাদুটোকে চটকাতে থাকে অক্লেশে… মাথাটাকে একটু তুলে বুকের একটা বোঁটা পুরে নেয় মুখের মধ্যে… ‘আহহহহহ… ইশশশশশ…’ হাতের মুঠোয় থাকা চুলগুলো শক্ত করে খামচে ধরে হিসিয়ে ওঠে সুদেষ্ণা…

মুখ বদল করে স্তনের বোঁটার… অপর বোঁটাটাকে মুখের মধ্যে পুরে সজোরে চুষে চলেন ভদ্রলোক… জিভ বোলান মুখের মধ্যে থাকা বোঁটার চারপাশটায়… দাঁতের হাল্কা কামড় বসান বোঁটার গোড়াটায়… ‘উমমম… মাহহহহহ…’ চাপা শিৎকার করে সুদেষ্ণা… সারা শরীরটায় আগুন ধরে যায় তার… কাকার মুখের মধ্যে পুরে থাকা বোঁটাকে রেখেই চেপে ধরে সে পুরো মাথাটাকে নিজের বুকের মধ্যে… বুঝতে অসুবিধা হয় না পরণের প্যান্টিটা আর তার যোনি রস ধরে রাখতে সক্ষম নয়… প্যান্টির কাপড় অনেকক্ষন আগেই চুপচুপে হয়ে ভিজে উঠেছিল, আর এখন সেটা উপচিয়ে রস গড়িয়ে নেমে চলেছে সুঠাম থাই বেয়ে… নীচের পানে…

‘এবার ছাড়ুন… অনেক খেয়েছেন…’ ফিসফিসিয়ে বলে সুদেষ্ণা… বলে ঠিকই কিন্তু ইচ্ছা করে না তার ভদ্রলোকের মুখের মধ্যে থেকে বোঁটাটাকে টেনে বের করে নিতে… মনে হয় আরো, আরো অনেকক্ষন ধরে চুষে যান এই ভাবেই…

কিন্তু সৌভিকের কাকা স্তনের বোঁটাটা ছেড়ে দিয়ে সোজা হয়ে বসেন… আরো একবার ভালো করে দুটো স্তনকে দেখে নিয়ে মুখ তোলেন উনি… ‘বড়ো সুন্দর তোমার বুকদুটো…’ গাঢ় স্বরে বলে ওঠেন সুদেষ্ণাকে…

মাথার চুল ছেড়ে সেও সোজা হয়ে দাড়িয়েছে ততক্ষনে… মাটির থেকে ব্রাটা তুলে নিয়ে পড়ে নিতে নিতে ঠোঁটের কোনে হাসি এনে বলে, ‘তাই?’

‘হু…’ ছোট্ট করে উত্তর দেন ভদ্রলোক…

তরিৎ হাতে ব্রা, ব্লাউজ পড়ে আঁচলটাকে ঠিক করে ফেলে দেয় কাঁধের ওপরে… তারপর মুখ তুলে একবার ভদ্রলোকের দিকে তাকিয়ে ফিসফিসিয়ে বলে ওঠে, ‘আসছি…’ বলে আর দাঁড়ায় না… দ্রুত পায়ে ঘর ছেড়ে বেরিয়ে নেমে যায় নীচে, যেখানে তখনও অন্যেরা বসে কথা বলছে…

এরপর সেইদিন রাতেই সৌভিককে জানায় তার আর তার কাকার সাথে ঘটে যাওয়া ঘটনাটা… শুনে সৌভিক খুব হাসে… পেছনে লাগে খুব… তারপর কতরাত সেই কাকার কথা মনে করেই সৌভিক রোল প্লে করে তাকে রমন সুখে পাগল করে তুলেছে বারংবার…

তারপর কেটে গিয়েছে দশটা বছর… একটু একটু করে সে ঘটনা বিস্মৃতির অতলে তলিয়ে গিয়েছে… সময়ের ধূলো পড়ে হারিয়ে গিয়েছিল সেদিনের বৃষ্টিভেজা সন্ধ্যেটা… কিন্তু আজ হটাৎ করেই যেন মুখটা ফিরে আসে সুদেষ্ণার বন্ধ চোখের আড়ালে… আর আসতেই কেঁপে ওঠে তলপেটটা সুদেষ্ণার… সজোরে যোনি পেশি দিয়ে কামড়ে ধরে তার শরীরের অভ্যন্তরে সেঁদিয়ে থাকা সৌভিকের দৃঢ় লিঙ্গটাকে… ‘আহহহ মমমমমহহহহহ…’ সৌভিকের নগ্ন পীঠের পেশিতে প্রায় নখ গেঁথে যায় তার… মুখের সামনে থাকা সৌভিকের বাহুর মাংসে দাঁত বসিয়ে দেয় সে অক্লেশে… ‘মুহহহমমমহহহ…’ বন্ধ মুখের মধ্যে থেকে গুঙিয়ে ওঠে সে… কলকল করে শরীর থেকে নিষ্কৃত হতে থাকে উষ্ণ রসের ধারা… ভিজিয়ে তোলে বিছানার চাঁদর… ‘উফফফফফফ… করোওওওওও… চেপে চেপে করো নাহহহহহ…’ পাদুটোকে তুলে কাঁচি মেরে টেনে ধরে সৌভিকের দেহটাকে নিজের পানে… তুলে তুলে দেয় কোমরটাকে নীচ থেকে সৌভিকের লিঙ্গ সঞ্চালনার সাথে তালে তাল মিলিয়ে… ‘ওওওওওওও মাহহহহহ… করোহহহহহ… আমার আসছেএএএএএএ…হহহহহ…’ কোঁকিয়ে ওঠে তীব্র রাগমোচনের সুখানুভূতিতে… সৌভিক তাড়াতাড়ি সুদেষ্ণার মুখটাকে চেপে ধরে হাতের মধ্যে… এই ভাবে তীব্র চিৎকারে পাশের ঘরে ঘুমন্ত ইশানের উঠে পড়া খুবই স্বাভাবিক হয়ে পড়বে সেটা বুঝে নিয়ে… পাগলের মত নিজের শরীরটাকে নাড়ায় নীচ থেকে সুদেষ্ণা… যোনিটাকে ঘসে সৌভিকের লিঙ্গের গোড়ার লোমের গোছার সাথে… ‘উননগগগহহহহ…’ সৌভিকের চেপে রাখা হাতের ফাঁক দিয়ে বেরিয়ে আসতে থাকে অস্ফুট অবোধ্য কিছু আওয়াজ… সৌভিক অনুভব করে তার দেহের নীচে থাকা শরীরটার মধ্যের এক প্রচন্ড কম্পন… বার দুয়েক সে কোমর সঞ্চালন করে নিজের, তারপর সেও ঠেসে ধরে ফুঁসতে থাকা লিঙ্গটাকে সুদেষ্ণার যোনির মধ্যে… গলগল করে উগড়ে দিতে থাকে ঝলকে্র পর ঝলক গাঢ় বীর্য…

পরের অংশ

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x