অ-সুখ [পার্ট ৩] [সমাপ্ত]

— পর্ব ১১ —
বাগান থেকে যখন বাড়ির মধ্যে ফিরে আসে সুদেষ্ণারা, সেই মুহুর্তে সৌভিক নিজের দৃঢ় লিঙ্গটাকে সমূলে গেঁথে দিতে থাকে এলির যোনির অভ্যন্তরে… সারা ঘর এলির প্রচন্ড শিৎকার আর সঙ্গমের আওয়াজে ভরে উঠেছে… সারা শরীরে চাকা চাকা দাগ হয়ে গিয়েছে সৌভিকের… এলির কামনার্ত দংশণের ফলস্বরূপ… বুকে, বাহুতে, ঘাড়ে, গলায়… সৌভিকের দেহটাকে আষ্টেপৃষ্টে জড়িয়ে ধরে রাগমোচন করে চলেছে এলি একের পর এক… হতে পারে সৌভিকের এই ধরণের সঙ্গম প্রথম, কিন্তু এলি জানে কি ভাবে একটা অচেনা অজানা পুরুষের থেকে নিংড়ে বের করে নিতে হয় শরীরি সুখ… অভিজ্ঞ রমন ক্রীড়ায় সুখের চূড়ান্ত পর্যায়ে নিজেকে তুলে নিয়ে গিয়েছে সে সৌভিকের ওই সাধারণ মাপের পুরুষাঙ্গটার সাহায্যে… ঘরের আবহাওয়ায় তাদের উন্মত্ত সুখের উষ্ণতা…

.
.
.
ডেভিড ঘরের দরজায় লক তুলে দিয়ে ঘুরে দেখে সুদেষ্ণা ইতিমধ্যেই বিছানায় উঠে বালিশে মুখ গুঁজে উপুড় হয়ে শুয়ে রয়েছে… বেঁকে উপুড় হয়ে থাকা শরীরটার দিকে খানিক এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে সে… সমুদ্রের ঢেউ যেন তার বিছানায় এসে স্তব্দ হয়ে গিয়েছে… বালিশের ওপরে কালো চুলের কুয়াশা ছড়ানো… সেখান থেকে গলা বেয়ে কাঁধ হয়ে দেহটা গড়িয়ে এসেছে তার দিকে… গভীর নিঃশ্বাসের ওঠা পড়ায় ফুলে ফুলে উঠছে চোখের সামনে থাকা ভরাট স্তনটা… উজ্জল বাদামী মসৃণ বাহু… যত্ন করে নেলপালিশ দিয়ে সাজানো সরু আঙুল… অবহেলায় যেন লুটিয়ে আছে বিছানার চাঁদরের ওপরে… কোমরের মধ্যে একটা বিপদজনক খাঁজ ঢুকে গিয়েই সেটা উথলে উঠেছে নিতম্ব হয়ে… সুগোল ভরাট নিতম্বটা উরুর সন্ধিক্ষণে লোভনীয় বর্তুলতায় পড়ে রয়েছে… লং স্কার্টে ঢাকা থাকলেও উরুর পেলবতা আর মাংসল স্ফিতি চোখ এড়ায় না ডেভিডের অভিজ্ঞ চোখের… পায়ের কাছটায় লং স্কার্টটা খানিক গুটিয়ে উঠে গিয়েছে, আর যার ফলে দুটো নির্লোম সুঠাম পায়ের গোছের দৃশমন্যতা…

সুদেষ্ণার শরীর থেকে চোখ না সরিয়ে একটা একটা করে নিজের দেহের পোষাক খুলতে থাকে ডেভিড… তারপর শুধু মাত্র বক্সারটা পরণে রেখে উঠে আসে বিছানায়…

বালিশের মধ্যে মুখ গুঁজে থাকলেও বিছানায় ভারী শরীরের উপস্থিতি বুঝতে অসুবিধা হয় না সুদেষ্ণার… সম্ভাব্য সঙ্গমের সম্ভাবনায় গায়ে কাঁটা দিয়ে ওঠে… কেঁপে ওঠে শরীরটা এক অজানা আশঙ্কায়… হাতের মুঠোয় খামচে ধরে বালিশের প্রান্ত…

ডেভিড কোন সময় নষ্ট করে না আর… বিছানায় উঠে এসে সুদেষ্ণার বাহু ধরে টেনে তুলে ধরে কম্পমান দেহটাকে অবলীলায়… ঘুরিয়ে, ফিরিয়ে ধরে তার দিকে… তারপর ঝুঁকে সুদেষ্ণার ভেজা ঠোঁট খুজে নেয় লহমায়… দুজোড়া ঠোঁট মিলে যায়…

প্রবল ব্যগ্রতায় খুলে মেলে ধরে নিজের ঠোঁট ডেভিডের জন্য… অক্লেশে গ্রহণ করে ডেভিডের তপ্ত জিহ্বা নিজের মুখের অভ্যন্তরে… খেলা করে ডেভিডের জিভটাকে মুখের মধ্যে নিয়ে আপন জিভের সাথে…

সময়, পল অতিবাহিত হয়ে যায় ঘড়ির কাঁটা বেয়ে… কিন্তু দুটো যেন প্রায় অভুক্ত যৌনপিপাসুর খেয়ালই থাকে না সেদিকে… সুদেষ্ণার মুখে মুখ রেখে হাত রাখে কোমল স্তনের ওপরে ডেভিড… নিষ্পেশন করে ভরাট স্তনটাকে পরনের জামার ওপর দিয়ে… ‘উমমমম…’ নিজের স্তনে বলিষ্ঠ হাতের চাপ পেয়ে গুঙিয়ে ওঠে সুদেষ্ণা ডেভিডের মুখের মধ্যে…

সুদেষ্ণার মুখের ওপর থেকে সরে সরাসরি তাকায় তার চোখের পানে ডেভিড… ডেভিডকে ওই ভাবে তাকাতে দেখে কেমন কেঁপে ওঠে আবার যেন সে… সারা দেহটা দুর্বল হয়ে মিশে যেতে যায় বিছানায়… আর সেই সাথে শরীরের মধ্যে এক প্রচন্ড তীব্র কামনার আগুন জ্বলে ওঠে দাউদাউ করে… ওই মিশ্র অনুভূতিতে বিদগ্ধ হতে হতে খামচে ধরে ডেভিডের বাহুদুটোকে তার মেয়েলি সরু আঙুলের সাহায্যে… ‘টেম মী… টেক মী প্লিজ…’ হিসিয়ে ওঠে ডেভিডের চোখে চোখ রেখে…

এক লহমায় খুলে যায় পরনের জামা… তারপর ব্রা… নগ্ন উর্ধাঙ্গে ডেভিডের কামনা ভরা চোখের সন্মুখে নিজের শরীরটাকে মেলে ধরে বসে থাকে সুদেষ্ণা… ‘ইয়ু আর বিউটিফুল…’ চাপা গলায় বলে ওঠে ডেভিড… এক দৃষ্টিতে সুদেষ্ণার ভরাট বুকটাকে দেখতে দেখতে…

‘তোমার পছন্দ হয়েছে?’ নির্লজ্জ প্রশ্ন বেরিয়ে আসে সুদেষ্ণার মুখের থেকে… হাত দুটো ডেভিডের বাহুর থেকে সরিয়ে রাখে দুটো স্তনের নীচে… তারপর সেদুটোকে নীচ থেকে তুলে ধরে ডেভিডের সামনে… ‘ইয়ু লাইকড্‌ দেম?’ ফের জিজ্ঞাসা করে অসঙ্কোচে… দ্বিধাহীন স্বরে…

‘হুমমমম…’ এবার যেন ডেভিডের গুঙিয়ে ওঠার পালা… হাত তুলে রাখে মেলে ধরা সুদেষ্ণার নগ্ন স্তনের ওপরে… মুঠোয় তুলে নেয় দুটো স্তনকেই দুই হাতের তালুর মধ্যে… তারপর সজোরে টিপে ধরে সেদুটোকে… ‘আহহহহহ… ইয়েসসসসস…’ কোঁকিয়ে ওঠে নিজের স্তনের ওপরে এই ভাবে নির্মম চাপ খেয়ে… হাত সরিয়ে রাখে ডেভিডের উরুর ওপরে… নিজের বুকটাকে এগিয়ে বাড়িয়ে ধরে ডেভিডের পানে… হাতের মুঠোয় নিয়ে প্রাণ ভরে চটকাতে থাকে নরম স্তনদুটোকে… হাতের পাঞ্জাটা এতটাই বড় যে সুদেষ্ণার ওই রকম ভরাট ভারী স্তনদুটো যেন একটা ছোট্ট বলের মত হারিয়ে যায় ডেভিডের হাতের তালুর মধ্যে… আরামে চোখে প্রায় বন্ধ হয়ে আসে সুদেষ্ণার… হাত ঘসে ডেভিডের উরুর ওপরে… মুড়ে রাখা হাঁটুর থেকে জঙ্ঘা অবধি…

উরুর সন্ধিতে হাত পৌছাতেই স্পর্শ পায় বক্সারের আড়ালে থাকা উত্তেজিত দৃঢ় হয়ে ওঠা পুরুষাঙ্গের… বক্সারের ওপর দিয়েই সেটাকে হাতের মুঠোয় ধরে নেয়… কচলাতে থাকে মুঠোয় পুরে… ছালটাকে আন্দাজ করে ওপর নীচে করে বক্সারের কাপড় সমেত লিঙ্গটাকে হাতের মুঠোয় রেখে… ‘আহহগগগহহহ…’ নিজের লিঙ্গে সুদেষ্ণার হাতের স্পর্শে গুঙিয়ে ওঠে ডেভিড… আরো বার দুয়েক স্তনটাকে মুচড়ে ছেড়ে দেয়… নিজের শরীরটাকে পেছন পানে হেলিয়ে দিয়ে বাড়িয়ে ধরে লিঙ্গটাকে সুদেষ্ণার দিকে… সুদেষ্ণা বক্সারের ইলাস্টিকের মধ্যে দিয়ে হাত গলিয়ে দেয়… হাতের মুঠোয়, মুঠো করে ধরে ডেভিডের পুরুষাঙ্গটাকে… মনে হয় যেন তার হাতটাই পুড়ে যাবে, এতটাই গরম হয়ে রয়েছে সেটা… টেনে হিঁচড়ে বাইরে বের করে নিয়ে আসে বক্সারের ইলাস্টিকের ওপর দিয়ে… তারপর মুদ্ধ দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে সেটার পানে…

কি অদ্ভুত ভাবে তার স্বামীর পুরুষাঙ্গের থেকে একেবারেই আলাদা… সেটার মাপ, পরিধি, দেখতে, মাথাটার থেকে ছালটা সরানো… আর সেখানে একটা কন্দকার গোল বেশ বড় পেঁয়াজের মত গোলাপী শীশ্ন… সেটার মাথার ওপরের চেরাটা দিয়ে হাল্কা প্রি-কামএর উপস্থিতি… লিঙ্গটার গোড়ায় হাতটাকে নিয়ে গিয়ে মুঠো করে ধরে সুদেষ্ণা… তারপর হাতটাকে সেটার গা বেয়ে ওপর নীচে করতে থাকে আলতো মুঠোয় রেখে… মুখ তুলে তাকায় ডেভিডের পানে… সেই মুহুর্তে এক অনির্বাচনীয় আরামে চোখ বন্ধ করে সুখের আধারে তলিয়ে রয়েছে সে…

ডেভিডের বুকের ওপর অপর হাতটা রেখে সামান্য ঠেলা দেয় সুদেষ্ণা… জিজ্ঞাসু দৃষ্টিতে তাকায় ডেভিড… তারপর তার বুঝতে অসুবিধা হয়না সুদেষ্ণার অভিসন্ধি… বিছানার ওপরে চিৎ হয়ে শুয়ে পড়ে সে… সুদেষ্ণা এগিয়ে গিয়ে ঝুঁকে যায় তার মুখের ওপরে… হাতের মুঠোয় দৃঢ় লিঙ্গটাকে ধরে রেখে চুমু খায় ডেভিডের ঠোঁটে… তারপর একটু একটু করে ইঞ্চি মেপে নামতে থাকে ডেভিডের শরীর বেয়ে নীচের পানে… প্রতিটা চুমুতে রেখে যায় সরেশ মুদ্রণ… নামতে নামতে পৌছায় তলপেটের ওপরে… নাকে আসে একটা তীব্র গন্ধ… কিন্তু সেটা খারাপ লাগে না… বরং গন্ধটা নাকের মধ্যে যেতেই যেন তার যোনির মধ্যেটায় একটা সড়সড়ানি উপলব্ধি অনুভূত হয়… হাতের মুঠোয় লিঙ্গটাকে বাগিয়ে ধরে ভালো করে তাকায় সেটার দিকে…

ডেভিড হাত বাড়িয়ে চেপে ধরে সুদেষ্ণার মাথাটাকে… তারপর সেটাকে ঠেলে তার লিঙ্গের দিকে… মুখ তুলে ডেভিডের চোখের দিকে তাকায় সুদেষ্ণা… ‘উমমম… প্লিজ… সাক ইট…’ ফ্যাসফ্যাসে গলার অনুরোধ ঝরে পড়ে ডেভিডের মুখের থেকে…

ফের লিঙ্গের দিকে মুখ ফেরায় সুদেষ্ণা… তারপর নিজের মুখটা আরো কাছে নিয়ে আসে সে… দ্বিধাহীন ভাবে পাতলা ঠোঁটজোড়া দিয়ে স্পর্শ করে স্পঞ্জএর মত নরম শীশ্নাগ্রে… জিভ বের করে চুঁইয়ে বেরিয়ে আসা প্রি-কামটাকে চেটে নেয় মুখের মধ্যে… তারপর হাঁ করে প্রায় গিলে নেয় পুরুষাঙ্গের মাথাটা নিজের মুখের মধ্যে… জিভ রাখে লিঙ্গটার নীচের ফুলে থাকা শিরার ওপরে… কানে আসে ডেভিডের গোঙানি… ‘ওহ! শিট…’ নির্দিধায় মুখের মধ্যে পুরে রাখা পুরুষাঙ্গটাকে চুষতে থাকে সে… সেই সাথে হাতের মুঠোটাকে ওপর নীচে করে মুখের ওঠা নামার সাথে তালে তাল মিলিয়ে… মুখের মধ্যে থেকে লালার ধারা গড়িয়ে নেমে যায় পুরুষাঙ্গটার গা বেয়ে… সুদেষ্ণার মাথার চুলটাকে খামচে ধরে রাখে শক্ত মুঠিতে ডেভিড… চুল ধরে মাথাটাকে নামায় ওঠায় তার উত্থিত পুরুষাঙ্গের ওপরে…

‘আর না…’ হটাৎ করে মাথাটা তুলে ছেড়ে দেয় ডেভিডের লিঙ্গটাকে মুখের মধ্যে থেকে সুদেষ্ণা… সোজা হয়ে বসে বিছানায় মাথার চুলটাকে ডেভিডের হাতের মুঠির থেকে ছাড়িয়ে নিয়ে…

‘হোয়াট!… ইয়ু হ্যাভ জাস্ট স্টার্টেড!…’ প্রায় কোঁকিয়ে ওঠে ডেভিড… তাকিয়ে থাকে অবিশ্বাসী চোখে… ভাবতেই পারে না এই মুহুর্তে এই ভাবে হটাৎ করে মুখ সরিয়ে নেবে সুদেষ্ণা…

ডেভিডের শরীর বেয়ে উঠে আসে সুদেষ্ণা… বুকের মধ্যে নখের আঁচড় কেটে বলে ওঠে সে… ‘প্লিজ… এই মুহুর্তে ওটা আমার শরীরের মধ্যে চাই ডেভিড… প্লিজ…’ মুখটাকে করুন করে প্রায় অনুনয় করে সে… ‘পরে… পরে যা বলবে আমি করবো… কিন্তু এখন নয়… এখন ওটাকে আমার শরীরে চাই… প্লিজ…’

এক ঝটকায় সুদেষ্ণার দেহটাকে চিৎ করে পেড়ে ফেলে বিছানার ওপরে… এক নিমেশে সুদেষ্ণার পরনের লং স্কার্ট আর প্যান্টিটা টান মেরে খুলে ছুড়ে ফেলে দেয় অবহেলায় দূরে… তারপর মেলে ধরা দুই পায়ের ফাঁকে বসে ডেভিড… হাতের মুঠোয় সুদেষ্ণার পায়ের একটা গোড়ালি ধরে টেনে ধরে সরিয়ে ধরে এক ধারে… সুদেষ্ণার মেলে ধরা যোনির দিকে তাকায় ডেভিড… সেই মুহুর্তে যোনির ফাটল চুইয়ে রসের ধারা বেরিয়ে এসে গড়িয়ে পড়ছে নিতম্বের খাঁজ বেয়ে… অন্য হাতে নিজের লিঙ্গটাকে মুঠো করে ধরে এগিয়ে নিয়ে আসে যোনির দিকে… তারপর সেটার মাথাটাকে যোনির ফাটলে রেখে ঘসতে থাকে… ‘উমমম… আহহহহহ… ইশশশশশশ…’ শিঁটিয়ে ওঠে প্রবল আরামে সুদেষ্ণা… উপযাযকের মত পা দুটোকে আরো ফাঁক করে মেলে ধরে সে… ‘ইয়েস ডেভিড… ফাক মীহহহহ…’ ফিসফিসিয়ে কাতর আহ্বান জানায় নিজের যোনির ভেতরে ডেভিডের দৃঢ় পুরুষাঙ্গটাকে ঢুকিয়ে দেবার জন্য…

সময় নষ্ট করে না ডেভিডও… যোনির মুখে পুরুষাঙ্গটাকে লাগিয়ে চাপ দেয় কোমরের… প্রায় হড়কে ঢুকে যায় বিশাল গোল মাথাটা লহমায়… ‘আহহহহহহহ…’ সুদেষ্ণার মুখ থেকে সাথে সাথে বেরিয়ে আসে শিৎকার… চোখের মণি বড় বড় করে তাকায় ডেভিডের পানে… অনুভব করে ধীরে ধীরে ওই বিশাল পুরুষাঙ্গটা একটু একটু করে গেঁথে যাচ্ছে তার দেহের মধ্যে কি মসৃণভাবে… তার শরীরের মধ্যে যেন প্রচন্ড সুখ ঢেউ এর আকারে আছড়ে পড়ছে একের পর এক… মাথাটাকে পেছনে বালিশের ওপরে প্রায় ছুড়ে বেঁকিয়ে ধরে নিজের দেহটাকে প্রবল উচ্ছাসে…

‘ওহহহহহ… মাহহহহহ… আহহহহহ… আগহহহহহ…’ হাত তুলে খামচে ধরে ডেভিডের বাহুটাকে… অনুভব করে ওই বিশাল পুরু লিঙ্গটার তার শরীরের অভ্যন্তরে ঢুকে যাওয়া… একেবারে ঢুকে গেলে শরীরের পুরো ভার ছেড়ে দিয়ে শুয়ে পড়ে সুদেষ্ণার দেহের ওপরে ডেভিড… লিঙ্গটা গেঁথে থাকে সুদেষ্ণার যোনির ভেতরে একেবারে গোড়া অবধি… সুদেষ্ণার যেন দম বন্ধ হয়ে আসার যোগাড় হয়… হাঁফাতে থাকে ডেভিডের ভারী শরীরটার নিচে শুয়ে… হাত দিয়ে জড়িয়ে ধরে ডেভিডকে নিজের দেহের সাথে… ভরাট বুকদুটো চেপ্টে যায় ডেভিডের বুকের সাথে… স্তনবৃন্তদুটো উত্তেজনায় যেন আরো শক্ত হয়ে ওঠে…

রসভরা বৌদি ম্যাডামের গতর ভোগ

আস্তে আস্তে কোমর দোলানো শুরু করে ডেভিড সুদেষ্ণার দেহের ওপরে নিজের শরীরের ভার রেখে… তার পুরুষাঙ্গটাকে সুদেষ্ণার যোনির সাথে মানিয়ে নিতে সময় দেয় সে… কারণ এরপর যখন সে সত্যিই প্রকৃত রমন শুরু করবে তখন যাতে সুদেষ্ণার কোন অসুবিধা না হয় সেটা মাথায় রেখে…

নিজের যোনির মধ্যে আসা যাওয়া করতে থাকা ওই বিশাল পুরুষাঙ্গটার উপস্থিতিতে গোঙায় সুদেষ্ণা… অনাবিল আরামে… মুখ দিকে ক্রমাগত শুধু শিৎকার বেরিয়ে আসতে থাকে ডেভিডের প্রতিবার লিঙ্গ সঞ্চালনের সাথে তাল মিলিয়ে…

‘ফাক মী… ফাস্ট…’ কোঁকিয়ে ওঠে ডেভিডের শরীরের নীচ থেকে সে… নীচ থেকে জঙ্ঘাটাকে তুলে ঠেলে ধরে ডেভিডের পানে… ‘ফাক মী ফাস্ট… নট লাইক দিস… ফাক মী হার্ড…’ গোঙাতে গোঙাতে বলে ওঠে সে… অধৈর্য হয়ে ওঠে ডেভিডের এই ভাবে ধীর লয়ে রমনে…

ডেভিড যেন সপ্তম স্বর্গে উঠে যায় সুদেষ্ণার এই ভাবে আর্জি শুনে… হাত তুলে দেহটাকে একটু তুলে মুঠোয় খামচে ধরে ভরাট স্তন একটা… সজোরে নিষ্পেষন করে স্তনটাকে মুঠোয় পুরে… দুই আঙুলের ফাঁকে ধরে মোচড়ায় স্তনবৃন্তটাকে নির্দয়তার সাথে… আর তাতে যেন আগুন জ্বলে ওঠে সুদেষ্ণার সারা শরীরে… বিকৃত মুখ কোঁকিয়ে ওঠে সে… ‘ওওওওওহহহহহহ… ইয়েসসসসস… টেপো… আরো জোরে টেপো… টিপে চটকে মিশিয়ে দাও ওটাকে… আরো জোরে জোরে করো… প্লিজ… ফাক মী হার্ড…’ বলতে বলতে সজোরে নিজেই নীচ থেকে তোলা দেয় কোমর… চেপে চেপে ধরে নিজের জঙ্ঘাটাকে ডেভিডের কোমরের সাথে… ওপর নীচের করে শরীরটাকে রগড়ায় যোনিটাকে ডেভিডের লিঙ্গের গোড়ার সাথে…

ডেভিড সুদেষ্ণার বুকের ওপর থেকে হাত তুলে এগিয়ে ধরে ওর মুখের সামনে… সুদেষ্ণার অক্লেশে ডেভিডের হাতটা ধরে পুরে নেয় নিজের মুখের মধ্যে… মহানন্দে চুষতে থাকে ডেভিডের হাতের আঙুল মুখের মধ্যে পুরে নিয়ে…

এবার ডেভিডও পারে না স্লথগতি ধরে রাখতে… গতি বাড়ায় রমনের… পুরুষাঙ্গটাকে প্রায় সম্পূর্ণ বাইরে টেনে এনে পর মুহুর্তে সবেগে ঢুকিয়ে দিতে থাকে যোনির মধ্যে… উপুর্যুপরি আঘাত হানতে থাকে সুদেষ্ণার মেলে রাখা যোনির মধ্যে একের পর এক প্রবল ধাক্কায়… সেই প্রতিটি ধাক্কায় কোঁকিয়ে কোঁকিয়ে ওঠে সুদেষ্ণা… নিজের পা দুটোকে তুলে ডেভিডের কোমরটাকে কাঁচি মেরে ধরে তুলে মেলে ধরে আরো নিজের জঙ্ঘাটাকে সেই প্রবল আঘাত নেবার তীব্র কামনায়… প্রতিবারের লিঙ্গের প্রবেশের সাথে বেরিয়ে আসতে থাকে শিৎকার, নাগাড়ে… ‘আহহহ… আহহহ… আহহহ… আহহহ… আহহহ… আহহহ…’

ডেভিড বোঝে সে ভিষন তাড়াতাড়ি তার চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌছে যেতে চলেছে… তার লিঙ্গটা সুদেষ্ণার যোনির মধ্যে যেন যাঁতাকলের মত নিষ্পেশিত হচ্ছে… সেও গোঙায় সুদেষ্ণার সাথে রমনের সাথে… ‘আগহহহ… আহহহহ…’ সঙ্গমের গতি একটু স্লথ করে আরো বেশিক্ষন নিজের চরম মূহুর্তটাকে ধরে রাখার অভিপ্রায়ে…

কিন্তু ডেভিডকে এই ভাবে গতি স্লথ করতে বুঝে গুঙিয়ে ওঠে সুদেষ্ণা… ‘আহহহহ… নাহহহহ… ফাক মী… হার্ডার… ডোন্ট স্টপ…’

ডেভিড প্রায় হাঁফাতে হাঁফাতে বলে ওঠে… ‘কিন্তু… কিন্তু তাহলে আমার হয়ে যাবে…’

‘হোক… হয়ে যাক… ফিল মী… ফিল মী উইথ ইয়োর স্পাঙ্ক… প্লিজ… দাও ডেভিড… দাও… আমায় ভরিয়ে দাও…’ প্রায় চিৎকার করে ওঠে সুদেষ্ণা সবলে চার হাত পায়ে ডেভিডের শরীরটাকে পেঁচিয়ে ধরে… ধারালো নখ দিয়ে খামচে ধরে ডেভিডের পীঠের সুঠাম পেশি…

ডেভিড আর ধরে রাখতে পারে না নিজেকে… একবার শেষ বারের মত লিঙ্গের সঞ্চালন করেই ঠেসে ধরে কোমরটাকে সুদেষ্ণার শরীরের সাথে… ঝলকে ঝলকে উগড়ে দিতে থাকে উষ্ণ গাঢ় বীর্য সুদেষ্ণার যোনির অভ্যন্তরে…

যোনির মধ্যে ডেভিডের তপ্ত বীর্যের উপস্থিতিতে প্রায় কোঁকিয়ে ওঠে প্রবল সুখে সুদেষ্ণা… গলা ছেড়ে চিৎকার করে ওঠে সে শরীরের মধ্যে প্রতিবার বীর্যের ঝরে পড়ার সাথে সাথে… ‘আহহহহহহহহহ… আহহহহহহহহ… আহহহহহহহহহ… আহহহহহহহ…’ প্রচন্ড রাগমোচনে দীর্ণবিদির্ণ হয়ে যায় সুদেষ্ণার দেহের মধ্যেটা… যোনির মধ্যে যেন একটা আগুনের গোলা ছুটে বেড়ায় তার শরীর বেয়ে প্রতিটা কোষের মধ্যে… দেহের প্রতিটা স্নায়ু বেয়ে… সারা দেহ কেঁপে কেঁপে ওঠে রাগমোচএর প্রবল অভিঘাতে… নিজেকে ডেভিডের সাথে আঁকড়ে ধরে সে অভিঘাতের সুখ অনুভব করতে থাকে সুদেষ্ণা…

ডেভিড সুদেষ্ণার দেহের ওপরে শুয়েই দম নেয় বড় বড় নিঃশ্বাস টেনে… সুদেষ্ণার ঠোঁটে লেগে থাকে প্রবল সুখের হাসি… থেকে থেকে তখনও যেন মৃদু কম্পন অনুভুত হয় তার দেহে… এ এমন রাগমোচন, যেটা সে অস্বীকার করতে দ্বিধা বোধ করে না মনে মনে যে এই রকম রাগমোচন তার আগে কখনও হয় নি… এত সুখ সে আগে কখনও পায় নি…

প্রায় নিথর হয়ে বেশ খানিকক্ষন পড়ে থাকে তারা একই ভাবে… দমটাকে ফিরে পাবার জন্য…

‘ইয়ু আর আম্যাজিং…’ মুখ তুলে সুদেষ্ণার দিকে তাকিয়ে বলে ওঠে ডেভিড… হটাৎ করে ভিষন লজ্জা করে সুদেষ্ণার… তাড়াতাড়ি মুখ লোকায় ডেভিডের চওড়া ছাতির মধ্যে… মনে মনে ভাবে এই কিছুক্ষন আগেই কি ভিষন উত্তেজিত হয়ে উঠেছিল তার শরীরটা ডেভিডের পুরুষাঙ্গটার উপস্থিতিতে…

‘এবার ওঠো… জামাটা পড়তে দাও…’ দেহের ওপর থেকে ডেভিডের ভারী শরীরটাকে সরিয়ে দেবার চেষ্টা করতে করতে বলে ওঠে সুদেষ্ণা…

‘কেন? কি দরকার? জামা ছাড়াই তো বেশ সুন্দর লাগে তোমায়…’ সুদেষ্ণার মাথার চুলে হাত বোলাতে বোলাতে বলে ডেভিড…

‘যাহঃ!… অসভ্য!…’ লজ্জায় কান লাল হয়ে ওঠে সুদেষ্ণার… ফের মুখ লোকায় ডেভিডের বুকে…

Leave a Reply